কোচবিহারে ছেলে ধরা আতঙ্কে মানুষ স্পর্শকাতর




কোচবিহার, ১৫জুলাই: দেশ জুড়ে ছেলে ধরা আতঙ্কে যখন সাধারণ মানুষ স্পর্শকাতর, ঠিক ভারতের কোচবিহার জেলার বেশ কয়েকটি জায়গায় একের পর ধরা পরছে অপরিচিত সন্দেহজনক কিছু মানুষ৷ গ্রাম এবং শহরের বিভিন্ন জায়গায় অপরিচিত মানুষ দেখলেই সাধারণ মানুষের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পরছে৷ কখনও আবার বেধড়ক পিটিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দিচ্ছেন এলাকাবসিরা৷ সূত্রে খবর, চলতি একমাসে জেলার বিভিন্ন থানায় ছেলে ধরা আতঙ্কে বেশি ছড়িয়েছে মাথাভাঙ্গা এবং মেখলিগঞ্জ মহকুমায়৷ সূত্রে খবর, এ পর্যন্ত মেখলিগঞ্জে সাতটি গ্রামবসতি এলাকা, মাথাভাঙ্গার দুটি এলাকায় সন্দেহভোজন অপরিচিত ব্যক্তির আতঙ্ক অধিক মাত্রায় ছড়িয়েছে৷ যদিও পুলিশ অনেক সন্দেহভোজনকে গ্রেপ্তার করে৷ বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এদের পরিধানে থাকছে পাগলবেশি জামাকাপড়, কখনও আবার সেজেগুঁজে৷ গত সপ্তাহে মাথাভাঙ্গা ব্লকের ময়নাতলি গ্রামে ছেলে ধরা সন্দেহে বেধড়ক পেটানো হয় এক যুবককে৷




জানা যায়, ওই যুবককে গ্রামবাসিরা পরিচয় জানতে চাইলে অসঙ্গতি পায়, সন্দেহ হয় তাঁদের৷ কখন বাড়ি বিহার আবার কখনও বাঙ্গলাদেশ বলতে থাকে ওই যুবক৷ আবার, মেখলিগঞ্জের জামালদহ, রানীরহাট, নিজতরফ, চৌরঙ্গী এলাকায় ছেলে ধরা সন্দেহে আতঙ্ক বেড়েই চলেছে৷ অধিকাংশ ক্ষেত্রেই পরিচয় মিলছে না এদের৷ যদিও পুলিশ সন্দেহভোজন এদের তুলে নিয়ে যাচ্ছে৷ মেখলিগঞ্জের জামালদহে সুপারমার্কেট এবং মসজিদ পাড়া এলাকায় স্থানীয় কিছু মানুষ অপরিচিত এক বেক্তিকে দেখতে পান, ওই ব্যক্তির কোলে এক ছোট্ট ছেলে ছিল বলে গ্রামবাসীদের দাবি৷ ওই সময় সন্ধ্যা হয়ে যাওয়ায খোঁজাখুঁজি শুরু করেন গ্রামবাসিরা, কিন্তু রত হযে যাওয়ায় ধরতে পারেনিকেউ৷ একই সাথে গতকাল রাত সাড়ে নয়টা নাগাদ পুলিশ এক সন্দেহভাজন ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে৷

গত তিন দিন আগে মেখলিগঞ্জের চৌরঙ্গী এলাকায় ছেলে ধরা সন্দেহে পুলিশের হাতে ধরা পরে এক যুবক৷ উল্লেখ্য যে কোচবিহার জেলার ওই বেশ কয়েকটি জায়গায় ছেলে ধরা আতঙ্ক অব্যাহত চলছে৷ গন ধোলাই দিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দিচ্ছেন গ্রামবাসিরা৷ অনেকই প্রস্ন তুলছেন এরা কারা? কথা থেকে আসছে? কি উদ্দেশ্য এদের?৷ এই সব প্রশ্ন জেরেই আতঙ্ক বাড়ছে বেশী৷ অবশ্য পুলিশ সূত্রে এখন পর্যন্ত তেমন কোন তথ্য জানা না গেলেও কেন্দ্রীয় গোয়ন্দা সূত্রে বিষয়টি নজরে রাখা হচ্ছে বলে জানা যাচ্ছে৷ ভারতের কোচবিহার জেলার সাথে বাংলাদেশ সীমান্ত কঠোর নিরাপত্তা থাকলেও খোলা সীমান্তে দিয়ে ভারতে প্রবেশ করছে এই সব অপরিচিত ব্যক্তি?

এমন প্রস্ন উড়িয়ে দিচ্ছেন না গোয়ন্দা আধিকারিকরা৷ তবে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে ধৃত অপরিচিত ব্যক্তিদের কোর্টে তোলা হচ্ছে৷ অধিকাংশ ক্ষেত্রেই পরিচয় মিলছে না৷ অন্যদিকে আতঙ্কযুক্ত এলাকার মানুষের কাছ থেকে জানা যায় ধৃত ব্যক্তিরা সব বলছে না, পাগল পাগল ভাবে সব এড়িয়ে যাচ্ছে, হঠাৎ বাড়ি বলছে বিহার, তাই সন্দেহ হওয়ায় আমরা পেটাতে শুরু করি, আর পরে পুলিশকে খবর দেই৷ তবে, অপরিচিত ওই ব্যক্তিদের সমাবেশে আতঙ্ক যেভাবে বাড়ছে এতে প্রশাসনকে এগিয়ে আসার সাথে মানুষকেও সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন সমাজসেবীরা৷ তবে অনেকের দাবি অনেক ক্ষেত্রেই ছেলে ধরা সন্দেহে গণধোলাই এর কবলে পড়ছেন অনেক ভিক্ষাজিবি এবং পথঘুড়ে পাগল।  এজন্য আগে সচেতন হতে হবে সাধারণ মানুষকে।




You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!