পশ্চিমবঙ্গ অতিথি শিক্ষক সমিতি’-র (WBGLA) সদস্যদের, মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ির সামনে আন্দোলন




কলকাতা,০৮ ফেব্রুয়ারি:বাংলার শিক্ষাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য নিজেদের দাবী দাওয়া নিয়ে আজ আবারও হাজরা মোড়ে মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ির সামনে আন্দোলনে বসে ‘পশ্চিমবঙ্গ অতিথি শিক্ষক সমিতি’ (WBGLA)-র সদস্যরা। মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ির সামনে গত ৬ ফেব্রুয়ারিতেও এই আন্দোলনে তারা সামিল হয়েছিল। তবে তাদের প্রথম আন্দোলন সেভাবে ফলস্রুত না হওয়ায় তারা ৮ ফেব্রুয়ারি অর্থাৎ আজ আবারও মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ির সামনে আন্দোলনে বসার সিধান্ত নেয়।




তাদের অভিযোগ আন্দোলনের প্রথমদিন মুখ্যমন্ত্রী বাড়িতে থাকা সত্ত্বেও তাদের সাথে দেখা করতে দেওয়া হয়নি। এমনকি গত পাঁচ, সাত বছর ধরে ধারাবাহিকভাবে তাদের এই দাবী দাওয়া সম্পর্কিত সাংগঠনিক কাজ গুলি তারা করে চলেছে। বাংলার পর্বের এক প্রতিনিধিকে ‘পশ্চিমবঙ্গ অতিথি শিক্ষক সমিতি’র এক সদস্য জানিয়েছেন, তাদের এই দাবী দাওয়া গুলি নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় দরবার করা হয়েছে। ফলে সমস্ত বিধায়ক থেকে শুরু করে বিভিন্ন উচ্চপদস্থ ব্যক্তিদের কাছে আবেদন জানানোর পরও এবিষয়ে কেনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। তাই নিজেদের দাবী আদায়ের জন্য আজ আবারও তারা রাজপথে আন্দোলনে নামে। এই আন্দোলনে আজ তারা মূলত তিনটি দাবী রাখেন।

১)অবিলম্বে অতিথি শিক্ষক ও চুক্তিভিত্তিক সহ সমস্ত ধরনের ‘এ্যাডহক্’ শিক্ষকদের ছাঁটাই বন্ধ করে ৬০ বছর পর্যন্ত শিক্ষকতার সুযোগ দেওয়া হোক্।
২) অন্যান্য সকল কর্মচারীদের মতো সরকারের জনকল্যাণকামী ‘স্বাস্থ্য সাথী’ প্রকল্পের সুযোগ সুবিধা তাদেরও দেওয়া হোক্।
৩) মহামান্য সুপ্রিম কোর্টের সমকাজে সমবেতনের নীতি সামনে রেখে জি.এল-দের পি.টি.টি ও সি.ডাবলু.টি.টি-এর মতো একই ধরনের সুযোগ সুবিধা তাদেরও প্রদান করা হোক্।

মূলত এই তিনটি আবেদন নিয়েই মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ির সামনে এই আন্দোলন সকাল ৮টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত চলে। দুর্ভাগ্যবশত এদিন মুখ্যমন্ত্রী বাড়িতে না থাকায় তারা তাদের দাবী দাওয়া সংক্রান্ত একটি চিঠি কালিঘাটে মুখ্যমন্ত্রীর অফিসের এক আধিকারিকের হাতে তুলে দেয় এবং মুখ্যমন্ত্রীর অফিসের আধিকারিকেরা এগুলি খঁতিয়ে দেখে এবিষয়ে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলার আশ্বাস দেন। ‘পশ্চিমবঙ্গ অতিথি শিক্ষক সমিতি’র এক সদস্যের কথায়, এর পরেও সরকার যদি তাদের দাবি দাওয়া গুলি না মেটায়,তবে তারা অনশনের পথই বেছে নেবেন বলে জানান।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!