হিলির ৪ পুলিশ কর্মীকে সাহসিকতার পুরস্কার পদক ও স্মারক প্রদান




হিলি, ১২ ফেব্রুয়ারিঃ নিজেদের জীবনের পরোয়া না করে আগুনে ঝাঁপ দিয়ে ২৩ জন খুঁদে পড়ুয়ার জীবন বাঁচানোয় এক এএসআই সহ চার পুলিশ কর্মীকে সোমবার সাহসিকতার পুরস্কার দিল দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পুলিশ প্রশাসন। এদিন হিলি থানায় একটি অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে চারজন পুলিশ কর্মীর হাতে স্মারকলিপি তুলে দেন জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার দেবাশিস নন্দী সহ অন্যান্য আধিকারিক ও বিশিষ্টজন।


 




জানা গিয়েছে, গত বৃহস্পতিবার ভোর রাতে হিলি থানার ত্রিমোহিনী প্রতাপ চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ে আগুন লেগে যায়। গ্যাস সিলিন্ডার থেকে আগুন ছড়িয়ে পড়ে স্কুলে। সেই সময় স্কুলে রান্নার কাজ চলছিল। এমনকি বিদ্যালয়ের মাঠে চলছিল স্কুল স্তরের ক্রীড়া প্রতিযোগিতা। সেখানে অন্য স্কুল থেকে আসা ২৩ জন পড়ুয়াও উপস্থিত ছিল। আগুন দেখতে পেয়ে স্কুলে ছুটে যায় পাশের নাকা পয়েন্টে থাকা এএসআই নিরুপম দাস, হোম গার্ড সুদন মণ্ডল, সিভিক ভলান্টিয়ার অন্তু দে ও শুভ্র জ্যোতি কুণ্ডু। উপায় না পেয়ে নিজেরাই হাত লাগায় আগুন নেভানোর কাজে। দমকল আসার আগেই ওই চার পুলিশ কর্মী আগুন নিভিয়ে ফেলেন এবং স্কুলে থাকা পড়ুয়াদের নিরাপদে বের করে নিয়ে আসেন। আগুন নেভাতে গিয়ে আহতও হন ওই চার পুলিশ কর্মী। যদিও প্রাথমিক চিকিৎসার পর চারজনকে ছেড়ে দেওয়া হয়।




এদিকে চার পুলিশ কর্মীর সাহসিকতার কথা ছড়িয়ে পরে সমস্ত এলাকায়। এরপরই জেলা পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে ওই দিনই চারজন পুলিশ কর্মীকে সাহসিকতার পুরস্কার দেওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী সোমবার হিলি থানায় একটি অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে চারজনকে পুরস্কৃত করা হয়। সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার দেবাশিস নন্দী, বঙ্গরত্ন প্রাপক অমূল্য রতন বিশ্বাস, হিলি থানার ওসি তাসি শেরপা সহ অন্যান্য আধিকারিক এবং বিশিষ্টজন।




এবিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার দেবাশিস নন্দী জানান, “নিজেদের জীবনের পরোয়া না করে সেদিন ২৩ জন শিশুর প্রাণ বাঁচিয়ে ছিলেন তারা। সেদিন যে সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছিল তারা, তারই পরিপ্রেক্ষিতে আজকের এই অনুষ্ঠান।”





You May Also Like

error: Content is protected !!