গঙ্গারামপুরে ঠাণ্ডায় মৃত এক কুলি




গঙ্গারামপুর, ১৫ জানুয়ারিঃ প্রবল ঠান্ডায় মৃত্যু হল এক ব্যক্তির। মৃতের নাম চন্দন মাহাত(৩৫)। বাড়ি গঙ্গারামপুর পৌরসভার পিডবলু পাড়া এলাকায়, পেশায় কুলির কাজ করতেন তিনি।




গতকাল রাতে গাড়ি থেকে মাল নামানো ওঠানো করার সময় অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। অসুস্থ অবস্থায় তাকে গঙ্গারামপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হলে রাতেই তাকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়। এদিকে মৃতদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য সোমবার বালুরঘাট জেলা হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।




স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মৃত ব্যক্তি চন্দন মাহাত গঙ্গারামপুর বাস স্ট্যান্ডে কুলির কাজ করতেন। গতকাল সকালেও কাজ করছিলেন তিনি। রাতে কাজ করার সময় হঠাৎই অসুস্থ হয়ে পরেন তিনি। সঙ্গে সঙ্গে তাকে গঙ্গারামপুর সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসারত অবস্থায় মারা যান তিনি।

এদিকে মৃতের পরিবারের দাবী, প্রচন্ড ঠান্ডার কারণেই মারা গেছে চন্দন। ঠান্ডার মধ্যে কাজ করতে গিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ে সে। গত কয়েকদিন ধরে উত্তরবঙ্গের অন্যান্য জেলার পাশাপাশি দক্ষিণ দিনাজপুরেও প্রচন্ড শীত পড়েছে। তাপমাত্রার পারদ বেশির ভাগ সময় ১০ ডিগ্রির কাছাকাছি থাকছে। জেলার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৩.৫ ডিগ্রী পর্যন্ত নেমেছিল(মাঝিয়ান কৃষি বিশ্ব বিদ্যালয় সূত্রে)। কনকনে ঠান্ডায় সাধারণ মানুষ সমস্যায় পড়েছে। গতকাল রাতে ওই ঠান্ডায় কাজ করার সময় অসুস্থ হয়ে পড়ে চন্দন। এরপর তাকে গঙ্গারামপুর হাসপাতালে ভর্তি করার পর হাসপাতালেই তিনি মারা যান। পুরো ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে গঙ্গারামপুর থানার পুলিশ।




এবিষয়ে মৃতের দাদা দিলীপ মাহাত জানান, “গতকাল রাতে কাজ করার সময় সে অসুস্থ হয়ে পড়ে। এরপর স্থানীয়রা তাকে হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়। কিন্তু শেষ রক্ষা আর হল না, রাতে হাসপাতালেই সে মারা যায়।” প্রচন্ড শীতের কারণেই তার ভাই মারা গেছে বলে দিলীপবাবু জানিয়েছেন।

অন্য দিকে মৃত্যুর কারণ জানতে মৃতদেহটি ময়নাতদন্তে পাঠিয়েছে গঙ্গারামপুর থানার পুলিশ। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পরেই বলা সম্ভব মৃত্যুর কারণ কী।





You May Also Like

error: Content is protected !!