সরকারি পুকুর লিজ নিয়ে অস্বচ্ছতা, অভিযোগ গোপালবাটি গ্রাম পঞ্চায়েতের বিরুদ্ধে








 

দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বালুরঘাট ব্লকের গোপালবাটি গ্রাম পঞ্চায়েতে রয়েছে মোট ১৬টি আসন। এর মধ্যে ১১ টি তৃণমূল এবং ৫ টি বামেদের দখলে। এই গ্রাম পঞ্চায়েতের বিরুদ্ধেই অস্বচ্ছতার অভিযোগ উঠেছে পুকুর লিজ দেওয়া নিয়ে। পঞ্চায়েতের অধীনস্থ সংসদগুলিতে ছোটবড় মিলিয়ে মোট ৬৩টি পুকুর রয়েছে। এরমধ্যে বেশিরভাগ ছোট ও জলাজঙ্গলে ভরতি রয়েছে। ফলে বড় মাপের অন্তত ২৫ টি পুকুর লিজ দেওয়া হয়েছে। বছর কয়েক আগে ডাক বা নিলামের মাধ্যমে সেগুলি লিজ নেয় ব্যবসায়ীরা। শর্ত অনুযায়ী তিন বছর লিজ নিয়েছে তারা। অভিযোগ, মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পরেও ওই পুকুরে মাছ চাষ করছে ব্যবসায়ীরা। এক্ষেত্রে পঞ্চায়েত স্বজন পোষণ এবং আর্থিক দুর্নীতিতে জড়িত বলে অভিযোগ।




ওই গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত গ্রামবাসী বাপি সরকার, মনোরঞ্জন মণ্ডল বলেন, লোক দেখানো লিজ দেওয়া হয়েছিল। ডাকের সময় প্রধানের লোকেরা অনেক বেশি রেট উঠিয়ে দেয়। কোনোটি ১ লক্ষ টাকার কাছাকাছি। লোকসান হবে বলে সেই রেটে তারা পুকুর লিজ নিতে পারেননি। পরে দেখা যায় যারা বেশি রেট উঠিয়েছিল তারা সেই রেটে লিজ নেয়নি প্রধানের সঙ্গে সাটঘাটে। পঞ্চায়েত গোপনে সেই পুকুরগুলি তাদের মাত্র ১০ থেকে ১৫ হাজারে লিজ দেয়। এখন পুকুরগুলি লিজ নেওয়ার মেয়াদ তিন বছর পেড়িয়ে গেছে। তবুও সেগুলিতে মাছ চাষ করছে ইজারাদাররা। এই ব্যাপারে তারা বারবার পঞ্চায়েতে সরব হয়েছেন। কিন্তু প্রধান তাদের প্রতিবাদে আমল না দিয়ে একইভাবে চলছেন।




অন্যদিকে এবিষয়ে গোপালবাটি গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান দুলাল মালি জানান, পুকুরগুলি ১০ থেকে ৮০ হাজার টাকা পর্যন্ত ডাক উঠেছিল। যারা সর্বোচ্চ আর্থিক মূল্য দিয়েছেন তারাই সেগুলি লিজ পেয়েছেন। তবে পুকুর লিজের মেয়াদ শেষ হয়েছে বলে স্বীকার করেছেন তিনি। কিন্তু পুনরায় ডাকের মাধ্যমে তিনি লিজ প্রক্রিয়া করার দায়িত্ব নেবেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন। কেননা আর মাত্র দুমাস বাদে পঞ্চায়েত নির্বাচন। ফলে এই কয়েকটা মাস জটিলতার মধ্যে জড়াতে চান না তিনি। পরবর্তীতে যিনি প্রধানের দায়িত্বে আসবেন তিনিই সেগুলি দেখবেন বলে জানান গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান দুলাল মালি।








You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!