মুর্শিদাবাদে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়াকে কেন্দ্র করে তৃণমূল-বিজেপির সংঘর্ষ







মুর্শিদাবাদ, ৩ এপ্রিল: মনোনয়নপত্র জমা দেওয়াকে কেন্দ্র করে তৃণমূল এবং বিজেপির সংঘর্ষকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়াল এলাকায়। মঙ্গলবার দুপুরে দুই দলের কর্মীদের সংঘর্ষে রনক্ষত্রের চেহারা নেয় মুর্শিদাবাদ জিয়াগঞ্জ বিডিও অফিস এলাকা। ঘটনায় বিজেপির জেলা সভাপতি গৌরী শঙ্করকে মারধরের অভিযোগ ওঠে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। যদিও বিজেপির অভিযোগ পুরোপুরি অস্বীকার করেছে তৃণমূল কর্মীরা। ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে জেলা জুড়ে।




উল্লেখ্য, মঙ্গলবার দুপুরে মুর্শিদাবাদ জিয়াগঞ্জ বিডিও অফিসে জেলা বিজেপি সভাপতি গৌরীশঙ্কর ঘোষের নেতৃত্বে বিজেপির পঞ্চায়েত এবং পঞ্চায়েত সমিতির প্রার্থীরা মনোনয়ন জমা দেওয়ার জন্য ডি সি আর কাটতে যায়। অভিযোগ, সেই সময় তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে বিজেপি প্রার্থীদের ডি সি আর কাটতে বাধা দেয়। বিজেপির প্রার্থীরা জোর পূর্বক ডি সি আর কাটতে গেলে তাদেরকে বেধড়ক মারধর করা হয়।


বিজেপি জেলা সভাপতি গৌরীশঙ্কর জানান, “জেলার কোন জায়গাতেই বিজেপিকে মনোনয়ন জমা দিতে দেওয়া হচ্ছে না। জেলাশাসককে এই ব্যাপারে আমি আগেই জানিয়েছিলেন। মঙ্গলবার মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার জন্য প্রার্থীদের নিয়ে বিডিও অফিসে যাচ্ছিলেন। বিডিও অফিসে ঢোকার মুখে তৃণমূলের গুন্ডা বাহিনী লাঠি, লোহার রড ও আগেয়াস্ত্র নিয়ে আমাদের উপর চড়াও হয়। আমাকে ও দলের অন্যান্য প্রার্থীদের বেধড়ক মারধর করা হয়। পুলিশ বাধা দেওয়ার পরিবর্তে নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করেছে মাত্র।”




তিনি আরও অভিযোগ করেন, মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার প্রথমদিন থেকেই তৃণমূলের গুন্ডা বাহিনী বিডিও অফিস চত্বর দখল করে রেখেছে। নিজেদের প্রার্থী ছাড়া আর কোনও দলের প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র জমা দিতে দিচ্ছে না।




জেলা বিজেপির সহ সভাপতি শাখারব সরকার বলেন, “তৃণমূল পুলিশ প্রশাসনকে সঙ্গে নিয়ে রীতিমত তাণ্ডব চালাচ্ছে। পুলিশের মদতেই সন্ত্রাস চালাচ্ছে। পুলিশের কাছে অভিযোগ জানালে কোন ব্যবস্থা তো নিচ্ছেই না বরং আমদের মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর হুমকি দিচ্ছে। আমরা এদিন মনোনয়ন জমা দিতে গেলে তৃণমূলের কয়েক হাজার দুষ্কৃতীরা লাঠি, বাঁশ, ইট এবং আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে বিজেপি কর্মী ও নেতাদের উপর চড়াও হয়। ঘটনায় আমাদের সভাপতি সহ কয়েকজন কর্মী আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।”




অন্যদিকে এইদিন দুপুরে ডোমকোল বিডিও অফিসে মনোনয়নপত্র জমা দিতে যাওয়ার সময় বিজেপির দুই প্রার্থী নন্দ দুলাল পাল ও জগন্নাথ দাসকে মারধর করার অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। দুই বিজেপি প্রার্থীর মাথা ফেটে যাওয়ায় তাদের ডোমকোল মহকুমা হাসপাতালে ভরতি করা হয়।




তৃণমূলের জেলা সভাপতি সুব্রত সাহা বিজেপির অভিযোগ অস্বীকার করে জানিয়েছেন, তৃণমূলের কর্মী নেতারা দলের প্রার্থীদের মনোনয়ন জমা নিয়ে ব্যস্ত রয়েছে। তৃণমূল এই ঘটনার সঙ্গে কোনভাবেই জড়িত নয়। এই জেলায় কংগ্রেস, বিজেপি বিরোধীদের পক্ষে কোন মানুষ নেই। বিরোধীরা প্রার্থী দেওয়ার জন্য কোন লোক পাচ্ছে না। তাদের এই ব্যর্থতা ঢাকতেই তৃণমূলের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করছে।








You May Also Like

error: Content is protected !!