মরলেই প্রাথমিকে চাকরি, বন্ধ শিক্ষক বাবার চিকিৎসা




জলপাইগুড়ি, ২৫ মে: বাবা মরলেই প্রাথমিকে চাকরি, তাই বন্ধ এক প্রাথমিক শিক্ষক বাবার চিকিৎসা! অভিযোগ, বিনা চিকিৎসায় একপ্রকার মৃত্যু সজ্জায় সেই প্রবীন প্রাথমিক শিক্ষক। জমি জমা সহ মোটা অঙ্কের বেতন থাকা সত্ত্বেও চিকিৎসা করাচ্ছে না তাঁর পরিবার।দীর্ঘদিন চিকিৎসা না হওয়ার কারণে বন্ধ হয়ে গিয়েছে খাওয়াদাওয়া।কঙ্কালসার অবস্থা নিয়েই বেঁচে আছেন কোনক্রমে। এমনই এক অমানবিক ঘটনা ধরা পড়ল জলপাইগুড়ি জেলার আমবাড়ি এলাকায়।




জানা গিয়েছে, জলপাইগুড়ি জেলার আমবাড়ি এলাকার প্রাথমিক শিক্ষক সুকুমার মহন্ত। আরও দু’বছর চাকরি রয়েছে সুকুমার বাবুর। বেতন প্রায় ৪৫হাজার টাকা। এছাড়াও রয়েছে প্রচুর জমি জমা, চারটি দোকান, একটি গাড়ি। ঘরে রয়েছে স্ত্রী ও তাঁর এক ছেলে আর এক মেয়ে। এত বিষয় সম্পত্তি থাকা সত্ত্বেও করুণ পরিস্থিতির মধ্যেই শুধুমাত্র প্রাণটুকু নিয়ে বেঁচে আছেন সুকুমার বাবু।

তাঁর বাড়িতে গিয়ে দেখা গেল একটি তালাবন্ধ ঘরে একটি কাঠের চৌকিতে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে কঙ্কালসার অবস্থায় পড়ে রয়েছেন এই প্রবীন প্রাথমিক শিক্ষক। প্রায় ১০বছর যাবৎ নানান রোগে ভুগছেন তিনি। প্রথমদিকে তাঁর চিকিৎসা হলর, দীর্ঘ কয়েকমাস যাবৎ তা বন্ধ রয়েছে। যদিও পরিবারের দাবি তার চিকিৎসা করানো হয়েছে। কিন্তু বর্তমানে আর্থিক অভাবের কারণেই বন্ধ রেখেছেন চিকিৎসা। তবে জমিজমা বিক্রি করে চিকিৎসা করাতে চান না বলেও জানিয়ে দেন সুকুমার বাবুর পরিবারের লোকজন।

এমনকি বাড়িতে সুকুমার বাবুর নিজের গাড়ি থাকলেও হাসপাতাল পর্যন্ত নিয়ে যাওয়ার মত নাকি সামর্থ নেই তাঁর পরিবারের। একেবারেই কঙ্কালসার অবস্থা সুকুমার বাবুর। এখনও দু’বছর চাকরি রয়েছে তাঁর। প্রতিমাসে তাঁর ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ঢুকে যাচ্ছে বেতনের হাজার হাজার টাকা। ব্যাংক থেকে সেই টাকা তোলেন সুকুমার বাবুর স্ত্রী ও ছেলে।

এছাড়াও চারটি দোকান ভাড়া বাবদ পাওয়া যায় আরও কয়েক হাজার টাকা। এত টাকা আয় হওয়ার পরেও অর্থের অভাবের অজুহাত দেখিয়ে সুকুমার বাবুর চিকিৎসা বন্ধ করে রেখেছে তাঁর পরিবার। পুরো বিষয়টি স্থানীয় বিডিও’কে জানিয়েছেন সুকুমার বাবুর প্রতিবেশীরা। প্রতিবেশীদের অনেকেই বলছেন, বাবার চাকরির লোভেই চিকিৎসা না করিয়ে বাবাকে মৃত্যুর দোড়গোড়াই এনে দাঁড় করিয়েছে তার পরিবার।





You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!