জলপাইগুড়ি জেলা পরিষদে বিরোধীশূন্যভাবে জয়ী তৃণমূল কংগ্রেস




জলপাইগুড়ি, ১৮ মে: জলপাইগুড়ি জেলা পরিষদ বিরোধী শূন্য। জেলা পরিষদের ১৯টি আসনের ১৯টিতেই জয়লাভ করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। ত্রিস্তর পঞ্চায়েত নির্বাচনে যে সবুজ ঝড় উঠবে, সেটা বোঝা গিয়েছিল মনোনয়ন পত্র জমা করার পরেই। বৃহস্পতিবার গণনার শুরু থেকে রাজ্যের বিভিন্ন গ্রামে যে সবুজ ঝড় উঠেছে আজও তা থামার লক্ষণ নেই। রাজ্যে দ্বিতীয় শক্তি হিসাবে বিজেপি উঠে আসলেও তাদের শক্তি অনেক কম। জেলা সভাপতি সৌরভ চক্রবর্তীর হাত যশে একদা লাল দুর্গে আজ সবুজের জোয়ার। জেলা পরিষদ বিরোধী শূন্য করার পাশাপাশি গ্রাম পঞ্চায়েত এবং পঞ্চায়েত সমিতিতেও তৃণমূলের জয়জয়কার অব্যাহত। তৃণমূলের এই অশ্বমেধের ঘোড়াকে থামাবার শক্তি কারও নেই। বিজেপি, বামফ্রন্ট বা জাতীয় কংগ্রেসের সার্বিক ফলাফল অনেক দুর্বল।




পাশাপাশি জলপাইগুড়ি জেলার ৭টি পঞ্চায়েত সমিতিই দখল করল তৃণমূল কংগ্রেস। জলপাইগুড়ি জেলায় ৮০টি গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে তৃণমূল কংগ্রেস ৬৯টি, বিজেপি ৫টি, সিপিআইএম ১টি এবং ত্রিশঙ্কু হয়েছে ৫টি গ্রামপঞ্চায়েতে।

জলপাইগুড়ি ত্রিস্তর গ্রাম পঞ্চায়েতের ১৩৪৭টি আসনের মধ্যে ভোট হয় ১২৩১টি আসনে। বাকি আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী তৃণমূল। নির্বাচনে তৃণমূল জয়ী হয়েছে ৮০৬টি আসনে, বিজেপি জয়ী হয়েছে ৩০৮টি আসনে, সিপিআই(এম) জয়ী হয়েছে ৫১টি আসনে, সিপিআই জয়ী হয়েছে ১টি আসনে, কংগ্রেস জয়ী হয় ৩০টি আসনে, ফরওয়ার্ড ব্লক পেয়েছে ৪টি আসন, আরএসপি পেয়েছে ২টি আসন, নির্দল ৩৫ টি এবং অন্যান্য পেয়েছে ৩টি আসন। জেলার ময়নাগুড়ি ব্লকে ১৬ টি গ্রামপঞ্চায়েতের মধ্যে ১৬টিই দখল করেছে তৃণমূল। রাজগঞ্জ ব্লকে ১২টি গ্রামপঞ্চায়েতের মধ্যে ১২টিই দখল করেছে তৃণমূল। জলপাইগুড়ি সদর ব্লকে ১৪টি আসনের মধ্যে ১১ টি গ্রাম পঞ্চায়েত পেয়েছে তৃণমূল, বিজেপি পেয়েছে ২টি গ্রাম পঞ্চায়েত। মালবাজার ব্লকে ১২টি গ্রামপঞ্চায়েতের মধ্যে ১২টি দখল করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। ধুপগুড়ি ব্লকে ১৬টি গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে তৃণমূল ১২টি, বিজেপি ৩টি, ১টি ত্রিশঙ্কু। নাগরাকাটা ব্লকে ৫টি গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে তৃণমূল ৩টি, বিজেপি ১টি, সিপিআই(এম) ১টি গ্রাম পঞ্চায়েত দখল করেছে। মেটেলি ব্লকে ৫টি গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে ৩টি তৃণমূল, ত্রিশঙ্কু ২টি রয়েছে।

জলপাইগুড়ি জেলার ২৩৪টি পঞ্চায়েত সমিতির আসনের মধ্যে ২১৭টি আসনে ভোট হয়। ১৭টি আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় জয়ী হয়েছে তৃণমূল। ২১৭টি আসনের মধ্যে তৃণমূল পেয়েছে ১৭২টি, বিজেপি পেয়েছে ৪১টি, সিপিআইএম পেয়েছে ১টি, কংগ্রেস পেয়েছে ১টি। জলপাইগুড়ি জেলার ৭টি পঞ্চায়েত সমিতিই দখল করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। ময়নাগুড়ি পঞ্চায়েত সমিতির ৪৮টি আসনের মধ্যে তৃণমূল কংগ্রেস পেয়েছে ৪১টি, বিজেপি পেয়েছে ৭ টি। রাজগঞ্জ পঞ্চায়েত সমিতির ৩৫টি আসনের মধ্যে তৃণমূল পেয়েছে ২৭টি, বিজেপি পেয়েছে ৭টি, আর কংগ্রেস পেয়েছে ১ টি।

মাটিয়ালী পঞ্চায়েত সমিতির ১৫টি আসনের মধ্যে তৃণমূল পেয়েছে ১২টি, বিজেপি পেয়েছে ৩ টি। নাগরাকাটা পঞ্চায়েত সমিতির ১৪টি আসনের মধ্যে তৃণমূল পেয়েছে ১০টি, বিজেপি পেয়েছে ৩টি এবং সিপিআই(এম) ১টি আসন পেয়েছে। মালবাজার পঞ্চায়েত সমিতির ৩৩টা আসনের মধ্যে তৃণমূল পেয়েছে ২০টি, বিজেপি ১টি আসন আর ১টিতে কোনও প্রার্থী নেই। ধুপগুড়ি পঞ্চায়েত সমিতিতে ৪৮টি আসনের মধ্যে তৃণমূল পেয়েছে ৩৮টি, বিজেপি পেয়েছে ১০টি। জলপাইগুড়ি সদর পঞ্চায়েত সমিতির ৪১টি গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে তৃণমূল কংগ্রেস পেয়েছে ২৬টি, বিজেপি পেয়েছে ১০টি আসন।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *