ফুড সেফটি সুপারভাইজারের প্রশিক্ষণে যৌথ উদ্যোগ রাজ্য ও কেন্দ্রের




শিলিগুড়ি, ১২জুলাই: ২০১৯ সালের মধ্যে প্রতিটি খাদ্যদ্রব্য প্রস্তুতকারী সংস্থার ফুড সেফটি সুপারভাইজারের প্রশিক্ষণের যৌথ উদ্যোগ রাজ্য ও কেন্দ্রের। নর্থ বেঙ্গল ইন্ডাস্ট্রিজ অ্যাসোসিয়েশনের সহযোগিতায় উত্তরবঙ্গের প্রত্যেক খাদ্যদ্রব্য প্রস্তুককারী সংস্থার সুপারভাইজারদের প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়েছে। উত্তরবঙ্গে প্রচুর ছোট, মাঝারী ও বড় খাদ্য প্রস্তুতকারী সংস্থা রয়েছে। কিন্তু সেই অর্থে কোনও সংস্থাতেই প্রশিক্ষিত ফুড সেফটি সুপারভাইজার নেই। বিষয়টি ফুড সেফটি স্ট্যান্ডার্ট অথোরিটি অফ ইন্ডিয়ার (ফাসাই) নজরে আসতেই এবিষয়ে পদক্ষেপ শুরু করা হয়। রাজ্যের মাধ্যমে দক্ষিনবঙ্গের পাশাপাশি উত্তরবঙ্গেও সুপারভাইজাদের অনুমোদিত বেসরকারি সংস্থার মাধ্যমে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। ২০১৯ সালের মধ্যে প্রত্যেয়ক খাদ্য প্রস্তুতকারী সংস্থায় সুপারভাইজার থাকা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। প্রশিক্ষিত সুপারভাইজার নিয়োগ না করা হলে সেই সংস্থার লাইসেন্স পর্যন্ত বাতিল হতে পারে।




বুধবার শিলিগুড়ির এস এফ রোডের একটি বেসরকারি হোটেলে এই প্রশিক্ষণ শিবিরের আয়োজন করা হয়েছিল। এদিনের প্রশিক্ষণ শিবিরে উপস্থিত ছিলেন, সংস্থার সদস্য প্রফুল্ল কুমার ঘোষ, সহকারি জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক তথা ডেসিগ্নেটেড ফুড অফিসার তুলসি প্রামানিক, সিআইআইয়ের উত্তরবঙ্গের সম্পাদক কমল কিশোর তিওয়ারি, দীপঙ্কর চক্রবর্তি ও ফুড প্রসেসিং অ্যাণ্ড ডেভলপমেণ্ট অফিসার অরুণাভ বল। এদিন নর্থ বেঙ্গল ইন্ডাস্ট্রিজ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সুরজিত পাল বলেন, “২০১৯ সালের মধ্যে খাদ্য প্রস্তুতকারী সংস্থা, কারখানায় সুপারভাইজার নিয়োগ করা বাধ্যতামূলক। গোটা উত্তরবঙ্গের সংস্থার সুপারভাইজারদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।”

২০১৭ সালে ফাসাই নির্দেশিকা জারি করে এবিষয়ে পদক্ষেপের জন্য নির্দেশ দেয়। ২০১৮ সালের শুরুতেই এবিষয়ে পদক্ষেপ করে রাজ্য। এদিন ২০টি ইউনিটের ৩২ জন এই প্রশিক্ষণ শিবিরে অংশগ্রহন করে। এদিনের শিবিরে জলপাইগুড়ি, কোচবিহার ও শিলিগুড়ির খাদ্যপ্রস্তুতকারী সংস্থার সদস্যরা অংশগ্রহন করে। ১৮ জুলাই মালদায় উত্তর ও দক্ষিণ দিনাজপুর এবং মালদাকে নিয়ে শিবিরের আয়োজন করা হবে। গোটা উত্তরবঙ্গে ৭৫টি বড় খাদ্য প্রস্তুতকারী সংস্থা রয়েছে। যার মধ্যে শিলিগুড়িতে ৩৭টি, কোচবিহারে ৮টি, জলপাইগুড়িতে ৩০টি সংস্থা রয়েছে। ৬ ঘণ্টা প্রশিক্ষণের পর একটি সংশাপত্র দেওয়া হবে। সেই প্রশিক্ষণের পর আগামী দু’বছরের মধ্যে আরও একটি অ্যাডভান্স কোর্স করানো হবে।




You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!