কলকাতায় শনিবার একাধিক কর্মসূচিতে যোগ দিতে আসছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি




কলকাতা,১০ জানুয়ারি NRC ও CAA প্রতিবাদে রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষোভ সত্ত্বেও শনিবার কলকাতা সফরে আসছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তাঁর আগমন ঘিরে উৎসব মুখর হয়ে উঠেছে কলকাতা সহ গোটা রাজ্য। তাঁর নিরাপত্তার জন্য প্রস্তুতি তুঙ্গে। কলকাতা বন্দরের সার্ধশতবর্ষ উদযাপনের অনুষ্ঠানে যোগ দিতেই মূলত তিলোত্তমায় আসা প্রধানমন্ত্রীর।




প্রধানমন্ত্রীর কলকাতা পোর্ট ট্রাস্টের ১৫০তম পূর্তির অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়া ছাড়াও শনি ও রবিবার এই দুদিনে রয়েছে এখানে বেশ কিছু কর্মসূচি। সংস্কারকৃত ৪টি ঐতিহ্যবাহী ভবন – ওল্ড কারেন্সি বিল্ডিং, বেলভেদেরে হাউস, মেটকালফ হাউস এবং ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল হল উদ্বোধন করবেন নরেন্দ্র মোদি। তিনি মিলেনিয়াম পার্কে হাওড়া সেতুর ‘লাইট অ্যান্ড সাউন্ড’ সূচনা করবেন এবং তারপরই বেলুন মঠের উদ্দেশ্যে রওনা হবেন। কেন্দ্রীয় সংস্কৃতি মন্ত্রক এই ঐতিহ্যবাহী ভবনগুলির সংস্কার করে সেখানে নতুন ভাবে প্রদর্শনী সাজিয়েছে। ওই মন্ত্রক দেশের মেট্রো শহর কলকাতাসহ দিল্লি, মুম্বই, আমেদাবাদ এবং বারাণসীতে ঐতিহ্যপূর্ণ ভবনগুলির  আশেপাশে এক একটি সাংস্কৃতিক স্থান তৈরি করার যে প্রকল্প গ্রহণ করেছে ।

প্রধানমন্ত্রী শনি ও রবিবার কলকাতা বন্দর কর্তৃপক্ষের আয়োজিত অনুষ্ঠানেও অংশগ্ৰহনের পাশাপাশি কলকাতা বন্দর কর্তৃপক্ষের অবসরপ্রাপ্ত ও বর্তমান কর্মচারীদের পেনশন তহবিলের ঘাটতি মেটাতে ৫০১ কোটি টাকার একটি চেকও তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী কলকাতা বন্দর কর্তৃপক্ষের দুই প্রবীণ অবসরপ্রাপ্তকর্মী ১০৫ বছরের নাগিনা ভগৎ এবং ১০০ বছরের নরেশ চন্দ্র চক্রবর্তীকে সম্মান জানাবেন। কলকাতা বন্দরের সার্ধশতবর্ষ উপলক্ষে একটি ফলকেরও উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী।

কলকাতা সফরে নেতাজি সুভাষ ড্রাই ডকের‌ কোচি- কলকাতা জাহাজ মেরামত ইউনিটের একটি আধুনিক ব্যবস্থারও উদ্বোধন করবেন এছাড়াও আরও বেশ কিছু প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন তিনি। সুন্দরবনের ২০০ জন আদিবাসী ছাত্র- ছাত্রীদের জন্য দক্ষ বিকাশ কেন্দ্র এবং প্রীতিলতা ছাত্রী আবাসেরও উদ্বোধনও তাঁর কর্মসূচির তালিকায় রয়েছে।

গুয়াহাটিতে ‘খেলো ইন্ডিয়া ইয়ুথ গেমস ২০২০’-র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর যাওয়ার কথা থাকলেও তাঁকে ঘিরে অল অসম স্টুডেন্টস ইউনিয়ন বিক্ষোভ দেখানোর কথা ঘোষণা করলে তিনি সফর বাতিল করেন। কলকাতায় মোদির পদার্পণ বিক্ষোভের আশঙ্কা থাকলেও আশা রাখা যায় কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কর্মসূচি সাফল্যমন্ডিত হবে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!