কলেজে ভর্তি প্রক্রিয়া চলাকালীন বহিরাগতদের প্রবেশ, অভিযোগের তীর শাসক দলের বিরুদ্ধে




শিলিগুড়ি, ১৯ জুলাইঃ প্রথম বর্ষের ভর্তি প্রক্রিয়া চলাকালীন কলেজে গুলিতে বহিরাগতদের প্রবেশ চলছে রমরমা। কলেজ কর্তৃপক্ষের উদাসিনতার কারনে ভর্তি প্রক্রিয়া চলাকালীন কলেজে বহিরাগতদের প্রবেশের অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে শিলিগুড়ি কলেজে। বুধবার সকালেও দেখা গেল কয়েক বছর আগে উর্ত্তীন হয়ে বেরিয়ে যাওয়া অনেক ছাত্রদের পাশাপাশি অন্য কলেজের পড়ুয়াদেরও কলেজের ভেতরে অবলীলায় ঢুকে পরছে বলে অভিযোগ।




যেসব বহিরাগতরা কলেজে ঢুকছে তারা প্রত্যেকেই তৃণমূল ছাত্র পরিষদের এখনও সক্রিয় নেতা-কর্মী বলে অভিযোগ। শুধুতাই নয়,অন্য কলেজের শাসকদল পরিচালিত ছাত্র সংসদের সদস্যদেরও এদিন কলেজের প্রশাসনিক ভবনে ঢুকতে দেখা গিয়েছে বলে অভিযোগ কলেজের বিরোধী ছাত্র সংগঠনের। কলেজের সামনে পুলিশের একটি ভ্যান থাকলেও তারা নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করে চলেছেন।

যদিও কলেজে বহিরাগতদের প্রবেশের অভিযোগ মিথ্যা বলে উড়িয়ে দিয়েছেন শিলিগুড়ি কলেজের অধ্যক্ষ ডঃ সুজিত কুমার ঘোষ বলেন, “কলেজে কোনও বহিরাগতদের ঢুকতে দেওয়া হয় না। তবে এদিন বেশ কয়েকজন কলেজের সাথে ক্রীড়ার বিষয়ে কথা বলতে এসেছিল।”

সম্প্রতি শিলিগুড়ি কলেজের কর্তৃপক্ষ একটি সাংবাদিক বৈঠকের মাধ্যমে কলেজে ভর্তির প্রক্রিয়ার বিষয়ে স্বচ্ছতার খতিয়ান তুলে ধরেছিলেন। কলেজের বিরুদ্ধে সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত বেশ কয়েকটি খবরের দায় কর্তৃপক্ষ চাপিয়ে দিয়েছিলেন শিলিগুড়ি কলেজেরই ক্যাম্পাসে চলা শিলিগুড়ি কলেজ অব কমার্স কলেজের দিকে। যেসব কারনে শিলিগুড়ি কলেজের বদনাম হচ্ছে তারজন্য শিলিগুড়ি কলেজ অব কমার্স কিছুটা দায়ি বলেও জানিয়ে ছিলেন তারা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শিলিগুড়ি কলেজের এক অধ্যাপক বলেন, “কলেজের ভেতরে ভর্তি প্রক্রিয়া চলাকালীন বহিরাগতদের প্রবেশ হচ্ছে তা অস্বীকার করার জায়গা নেই। বেশ কয়েকজন কলেজে ভর্তি হতে আসা ছাত্রছাত্রীদের অভিভাবকের ছুতো দিয়ে প্রবেশ করে যাচ্ছে। তবে ভর্তি প্রক্রিয়া শেষ হলে এই সমস্যা আর থাকবে না।”

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিরোধী ছাত্র সংগঠনের এক সদস্য বলেন, “কলেজে প্রতিদিনই বহিরাগতদের আনাগোনা লেগে থাকে। তৃণমূল ছাত্র পরিষদের অনেক বহিরাগতরা কলেজে আসে। বাইক নিয়ে খেয়ালখুশি মতো কলেজের ভেতরে ঘোরাঘুরি করে।”

প্রসঙ্গত,রাজ্যের অন্যান্য জেলায় বিভিন্ন কলেজে ভর্তি নিয়ে শাসকদল পরিচালিত ছাত্র সংগঠনের বিরুদ্ধে তোলাবাজির একাধিক অভিযোগ উঠেছে। কলেজ গুলিতে ভর্তি প্রক্রিয়া চলাকালীন বহিরাগতদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু তারপরেও এই নির্দেশ উপেক্ষা করার অভিযোগ উঠেছে কলেজ কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে।




You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!