তৃণমূল ছাত্র পরিষদের কলেজ ইউনিটের আহ্বায়ককে গুলি দুষ্কৃতীদের




কোচবিহার, ১৩ জুলাইঃ তৃণমূল ছাত্র পরিষদের কলেজ ইউনিটের আহ্বায়ককে গুলি করে পালাল একদল দুষ্কৃতীরা। শুক্রবার বিকেলে কোচবিহার শহরের ষ্টেশন মোড় সংলগ্ন কোচবিহার তুফানগঞ্জ রোডে ওই ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয় কোচবিহার কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র মাজিদ আনসারি। আশঙ্কাজনক অবস্থায় মাজিদকে প্রথমে শহরের একটি নার্সিংহোমে ভর্তি করা হয়। পরে তার শারীরিক অবনতি দেখে সেখান থেকে তাকে শিলিগুড়িতে স্থানান্তার করা হয়। এই ঘটনায় উত্তপ্ত হয়ে ওঠে গোটা এলাকা। উত্তেজিত ছাত্ররা একটি বাসে ভাঙচুর চালায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় কোতয়ালি থানার পুলিশ।




ওই ঘটনায় অভিযুক্ত লোটাস, অভিজিৎ দাস, সঞ্জিত সানি, নবাব হেতাতুল্লা এই তিনজনের নামে কোতয়ালি থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়। তবে পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছ। জানা গিয়েছে, কলেজ শেষে বাড়ি ফেরার সময় বিবেকানন্দ স্ট্রিট এলাকায় গুলিবিদ্ধ হয় মাজিদ। তার পেটে একটি গুলি এসে লাগে। সঙ্গে সঙ্গে তাকে একটি নার্সিংহোমে পাঠানো হয়।

কলেজ ছাত্রদের অভিযোগ, কোচবিহার কলেজে সংগঠনের পোস্টার লাগাতে যায় কোচবিহার পুরসভার কাউন্সিলার তথা তৃণমূল ছাত্র পরিষদের নেতা শুভজিৎ কুণ্ডুর অনুগামী একদল প্রাক্তন ছাত্র। সেই সময় তৃণমূল ছাত্র পরিষদের বর্তমানের নেতা অভিজিৎ দে ভৌমিকের অনুগামী কয়েকজন ছাত্রছাত্রী প্রাক্তন ছাত্রদের বাধা দেয়। এরপরই দুই গোষ্ঠীর মধ্যে বচসা শুরু হয়। সেখানে শুভজিতের অনুগামীরা ওই ছাত্রছাত্রীদের হুমকি দেয় বলে অভিযোগ।

তৃণমূল ছাত্র পরিষদের নেতা সায়নদ্বীপ গোস্বামী জানান, জেলার অন্যান্য কলেজের সাথে মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ অনুযায়ী মেধার ভিত্তিতে ভর্তি প্রক্রিয়া চলছে। কিন্তু এদিন কোচবিহার কলেজে একদল বহিরাগত একটি লিস্ট নিয়ে গিয়ে ভর্তি করানোর চেষ্টা করে। সেখানে ছাত্রছাত্রীরা তাঁদের বাঁধা দিলে তাঁদের ধরে মারধর করা হয়। পরে পুলিশকে জানালে ওই বহিরাগতরা সেখান থেকে পালিয়ে আসে। এরপর তৃণমূল ছাত্র পরিষদের কোচবিহার কলেজ ইউনিটের আহ্বায়ক মাজিদ আনসারিকে বাড়ি ফেরার সময় গুলি করে। তাঁকে ইতিমধ্যেই শিলিগুড়ি উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে। সে এখন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে।

সায়নদ্বীপ বাবু তিনি আরও বলেন, “শহরের একজন কুখ্যাত সমাজ বিরোধীর আশ্রয়ে থাকা দুষ্কৃতীরা এই ঘটনা ঘটিয়েছে। তাঁদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হবে।”

এবিষয়ে পুলিশ সুপার ভোলানাথ পান্ডে বলেন, “ আজ দুপুর ৩টা নাগাদ কোচবিহার কলেজের প্রাক্তন কয়েকজন ছাত্র কলেজে ঢোকার চেষ্টা করে। সেই সময় বাধা দেয় কলেজের বর্তমান কয়েকজন ছাত্রছাত্রী। সেই সময় দুই পক্ষের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়। কিছুক্ষণের মধ্যে তাদের ছত্রভঙ্গ করা হয়। এরপর বিকেল ৩ টা ৪৫ মিনিট নাগাদ অভিযুক্ত লোটাস, অভিজিৎ দাস, সঞ্জিত সানি, নবাব হেতাতুল্লা সহ অন্য কয়েকজন প্রাক্তন ছাত্র কলেজের বর্তমান ছাত্র মজিদকে আক্রমণ করে। ওই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।”




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!