নতুন যাত্রা শুরু রূপাঞ্জনা-রাতুলের




বিনোদন,১৪ জুলাই:শুরুটা একটা এমন কাজ দিয়ে করতে চাইছিলেন রাতুল-রূপাঞ্জনা, যেটা নিছক একটা কাজ হবে না। বরং তা এক সামাজিক দায়িত্ব পালন করবে। সেই কথা মাথায় রেখেই ছবির কাহিনি লেখা হয়েছে। বহু মানুষ জীবনের অন্ধকার সময়ে বিষণ্ণতায় ভুগতে থাকেন। শেষমেশ আত্মহননের চরম পথের দিকে এগিয়ে যান। ছবির সূত্রে তাঁদের কাছে একটা বার্তা তুলে দিতে চেয়েছেন প্রযোজকদ্বয়। তাঁদের আশা, যদি একটি প্রাণও নতুন করে বাঁচার দিশা খুঁজে পায় ছবিটি থেকে, তাহলেই তাঁদের পরিশ্রম সার্থক।




রূপাঞ্জনা জানালেন, ‘‘ছবিটার সঙ্গে আমার সম্পর্ক খুবই নিবিড়, কেননা ছবিতে আমার করা অনুরূপা চরিত্রটা আমার কাছে খুবই বিশ্বাসযোগ্য বলে মনে হয়েছে।’’

ছবিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় রয়েছেন অভিনেতা শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়। আগেও তাঁর সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতা রয়েছে রূপাঞ্জনার। জানালেন, ‘‘অপুদার মতো দক্ষ অভিনেতার সঙ্গে কাজ করাটা সত্যিই আনন্দের। এর আগেও ওঁর সঙ্গে কাজ করেছি বলে প্রথম থেকেই কাজটা স্বচ্ছন্দে করতে পেরেছি।




You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!