বারাসতে এক মহিলাকে গনধর্ষণ




বারাসত,২৫ অক্টোবর :-চুরি করতে দেখে ফেলায় বারাসতে এক মহিলাকে গনধর্ষণ করে খুনের চেষ্টার অভিযোগ উঠলো৷পঞ্চাশ ছুঁই ছুঁই ওই মহিলাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় বারাসত জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে৷ঘটনার পর বিষয়টি নিয়ে রাজনৈতিক হস্তক্ষেপের অভিযোগ উঠেছে৷সেখানে আবার স্থানীয় তৃণমূল কাউন্সিলার অরুন ভৌমিকের নাম জড়িয়েছে৷যদিও তা অস্বীকার করেছেন তিনি৷ঘটনাকে ঘিরে জেলা সদর বারাসতের আইনশৃঙ্খলা আবারও প্রশ্নের মুখে৷পরিবার সূত্রে জানা গেছে,ভোরবেলায় বরাবর ফুল তোলার নেশা ওই মহিলার৷বারাসত ভদ্রবাড়ির গিরিশ ঘোষ রোডে তার বাড়ি৷মঙ্গলবার কাকভোরেও মহিলা বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান ফুল তুলতে৷বাড়ি থেকে হাতে গোনা কয়েক পা এগোতেই দেশপ্রিয় রোডের কাছে তিনি লক্ষ্য করেন,একটি নির্মিয়মাণ বাড়ি থেকে লোহার রড চুরি করছে পাঁচ দুষ্কৃতী৷তাদের চিনে ফেলায় মহিলা যখন সবাইকে বলে দেওয়ার কথা বলে,তখনই ওই দুষ্কৃতীরা পাশের একটি বাগানে তাকে জোর করে তুলে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ৷এরপর,সেখানেই তার ওপর নিযা’তন চালিয়ে লোহার রড দিয়ে মাথায় মেরে খুনের চেষ্টা করা হয় বলে অভিযোগ৷পরে,বিবস্ত্র অবস্থায় মহিলা ফেলে চম্পট দেয় হামলাকারীরা৷বেশ কিছুক্ষণ পরে এলাকার লোকজনের কাছ থেকে খবর পেয়ে সেখানে ছুটে যায় মহিলার পরিবার৷পরে,পুলিশের মাধ্যমে তাকে ভতি’ করা হয় বারাসত জেলা হাসপাতালে৷হাসপাতাল সূত্রে খবর,ওই মহিলার মাথায় গুরুতর আঘাত রয়েছে৷তাকে শারীরিক অবস্থার পর্যবেক্ষন করা হচ্ছে৷পুলিশ গনধর্ষণের বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলতে না চাইলেও নিযা’তিতার বোন রীতা রায়বাহাদুর সরকারের অভিযোগ,তার দিদিকে ওই পাঁচজন মিলে গনধর্ষণই করেছে৷তারপর,রড দিয়ে খুনের চেষ্টা করা হয়৷অভিযুক্ত ওই পাঁচজনের নাম দিদি পুলিশকেও বলেছে বলে দাবি তাঁর৷রীতাদেবীর আরও অভিযোগ,স্থানীয় তৃনমূল কাউন্সিলর অরুন ভৌমিক বাড়িতে লোকজন পাঠিয়ে বিষয়টি চেপে যাওয়ার কথা বলে৷অভিযোগ না করার জন্যও চাপ দেওয়া হয়৷




,আমরা ভয়ে থানায় অভিযোগ জানাতে পারিনি৷তবে,রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ কিংবা চাপ দেওয়ার বিষয় কোনওটাই মানতে চাননি তৃনমূল কাউন্সিলার৷তাঁর দাবি,বিষয়টি জানার পর ওনার পরিবারই আমার সঙ্গে দেখা করতে এসেছিল৷আমি ওনাদের পুলিশের সঙ্গেই যোগাযোগ করতে বলি৷এখানে আমাকে কেনো টানা হচ্ছে তা বুঝতে পারছিনা৷এদিকে,আজ ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা গেলো,নির্যাতিতা মহিলার ছেঁড়া পোষাক বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে সিঁটিয়ে রয়েছে৷তা বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমকে দেখালেন নিযা’তিতার বোন রীতা৷ঘটনায় স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে ক্ষোভ থাকলেও তারাও আতঙ্কে কেউই মুখ খুলতে চাইছেন না৷ফলে,এনিয়ে পরিবার থেকে এলাকার লোকজন যে যথেষ্ট চাপে রয়েছে তা বলার অপেক্ষা রাখেনা৷প্রসঙ্গত,বারাসতে একের পর এক অপরাধের ঘটনায় বারাসত যে বারাসতেই আছে তা আবার প্রমানিত৷




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!