ঝাড়খণ্ডের ব্যাঙ্ক ডাকাতির ঘটনায় মালদায় গ্রেপ্তার মহিলা







মালদা, ১৭ এপ্রিল: ঝাড়খণ্ডের একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের শাখায় ডাকাতির ঘটনায় আবারও সাফল্য পেল পুলিশ। ঝাড়খণ্ডের বোকারো স্টিল এলাকার রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাঙ্কের শাখায় ডাকাতির ঘটনায় মালদা থেকে এক মহিলাকে গ্রেপ্তার করল পুলিশ। উদ্ধার হয়েছে প্রচুর সোনা ও নগদ টাকা। মালদার ইংরেজবাজার থানার পুলিশের সহযোগিতায় ওই মহিলাকে গ্রেপ্তার করেছে ঝাড়খণ্ড পুলিশ। ধৃতকে আজ ট্রানজিট রিমান্ডে ঝাড়খণ্ড নিয়ে যাচ্ছে পুলিশ।





গত বছরের ২৬ ডিসেম্বর ঝাড়খণ্ডের বোকারো স্টিল এলাকার রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাঙ্কের লকার ভেঙে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। তারপরই ঘটনার তদন্তে নেমে ঝাড়খণ্ড পুলিশ জানতে পারে, চুরির মাল মালদায় পাচার হয়েছে। মালদা জেলা পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে ঝাড়খণ্ড পুলিশ। ২৬ মার্চ মালদার বিনয় সরকার রোডে একটি সোনার দোকানে হানা দেয় পুলিশ। সেখান থেকে উদ্ধার হয় চুরি যাওয়া সোনা সহ নগদ ৬০ হাজার টাকা। দোকানের কর্মী পাপ্পু চৌহানকে গ্রেপ্তার করা হয়।

তবে দোকানের মালিক মহারাষ্ট্রের বাসিন্দা দত্ত সিন্ধের সন্ধান পাওয়া যায়নি। পাপ্পুকে নিজেদের রাজ্যে নিয়ে যায় ঝাড়খণ্ড পুলিশ। তাকে জেরা করে চুরির মাস্টার মাইন্ড হাসান আলির নাম জানতে পারে পুলিশ। হাসান ইংরেজবাজার থানার যদুপুর গ্রামের বাসিন্দা। সে আগে ঝাড়খণ্ডে বসবাস করত। তবে কিছুদিন আগে স্ত্রী ও পরিবারের অন্য সদস্যদের নিয়ে মালদায় ফিরে আসেন। পাপ্পুর দেওয়া সূত্র ধরে ঝাড়খণ্ড পুলিশ হাসানকে গ্রেপ্তার করে। মালদা থেকে গ্রেপ্তার করা হয় রাজা খানকে ও অন্য এক যুবককে।

একে একে ধৃতদের জেরা করে ঝাড়খণ্ড পুলিশ জানতে পারেন, ব্যাঙ্কের ডাকাতির মালের একটা বড় অংশ হাসানের স্ত্রী ফিরদৌসি বিবির কাছে রয়েছে। এরপর সোমবার রাতে দুই রাজ্যের পুলিশ মালদা শহরের যদুপুর গ্রামে হাসানের বাড়িতে হানা দেয়। বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে উদ্ধার হয় ২ কিলো সোনা ও ১৭ হাজার টাকা। গ্রেপ্তার করা হয় হাসান আলীর স্ত্রী ফিরদৌসি বিবিকে।




ধৃত মহিলা ফিরদৌসি বিবিকে রাতে ইংরেজবাজার মহিলা থানায় রাখা হয়েছিল। মঙ্গলবার ট্রানজিট রিমান্ডে ঝাড়খণ্ড নিয়ে যেতে ধৃত মহিলাকে মালদা জেলা আদালতে পেশ করে পুলিশ।




error: Content is protected !!