২ দিন পর সুটঙ্গা নদীতে ভেসে উঠল অমলের দেহ




মেখলিগঞ্জ, ২৫ জুন: ঘটনার দুই দিন পর অবশেষে ভেসে উঠলে দেহ৷ সূত্রে খবর, গত চব্বিশ তারিখ মেখলিগঞ্জের সুটঙ্গা নদীতে সাতার কাটতে গিয়ে বন্যার জলে ডুবে যায় অমল বর্মণ নামে এক যুবক ৷ দুই দিন ধরে কোচবিহার বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী তল্লাশি চালিয়ে উদ্দার করতে পারেনি দেহটি ৷ যদিও দেহ না মেলায় গ্রাম বাসীদের বিক্ষোভের মুখে পড়েন প্রশাসনিক আধিকারিকরা ৷




ঘটনার দুই দিন পরে আজ সুটঙ্গা নদীতে শুরু হয়েছে বন্যা নদীতে ভেসে উঠে দেহটি ৷ সূত্রে খবর, মেখলিগঞ্জের জামালদহ ১৯০ খারিজা জামালদহ এলাকায় ডুবে যায় অমল, আজ এখান থেকে প্রায় দশ কিমি দূরে মাথাভাঙ্গা ব্লকের নয়ারহাট এলাকা থেকে নদীর ধারে দেহটি স্থানীয়রা দেখতে পান ৷ খবর দেয়া হয় মেখলিগঞ্জ থানা এবং মাথাভাঙ্গা থানায় ৷ ঘটনাস্থলে পৌঁছে যান মাথাভাঙ্গা থানার পুলিশ ৷

উল্লেখ্য যেতিন দিনের বৃষ্টিতে নদীতে স্রোতের বেগ বেড়ে গেছে ৷ চব্বিশ তারিখ দুপুর তিনটে নাগাত স্নান করতে আসেন অমল বর্মণ, এবং সাতার কাটেন, তখন স্নান করার সময় আচমকা ভরা স্রোতে ডুবে যান ওই যুবক ৷ সূত্রে খবর ঐসময় নদীর জল বেড়েছে, নদীর জলে ডুবে নিখোঁজ অমল বর্মণ কে খুঁজতে নদীতে ঝাঁপিয়ে পারেন বাবা গজেণ বর্মণ ৷ গ্রাম বাসী কানাই বর্মণ, অশোক বর্মণ জানান, “স্নান করতে আসে অমল, এর পর নদীর ওপারে সাতার কাটার জন্য যায়, কিন্তু ফিরে আসার সময় মাঝ পথে ডুবে যায় “।

খবর দেয়া হয়েছে মেখলিগঞ্জ থানায় ,ঘটনা স্থলে ছুটে আসে পুলিশ ৷ দুই দিন পড়ে পচা দেহ মেলায় অমলের পরিবার সহ গোটা গ্রামে শোকের ছায়া ৷




You May Also Like

error: Content is protected !!