‘বাবা মায়ের ঋণ শোধ করা যায় না’, কনকাঞ্জলিতে নতুন বউয়ের ‘বিপ্লব’




এই মুহূর্তে,২৯ জানুয়ারি:পাল্টাচ্ছে। সমাজ পাল্টাচ্ছে। ‘পুরুষ শাসিত’ সমাজে আর আধা-আধির গল্প থাকছে না। আধুনিকতার ছোঁয়া লাগছে। হিরের পল কেটে দ্যুতি বিচ্ছুরিত হচ্ছে। ভাঙছে গোঁড়ামিও। শিক্ষা আনছে চেতনা আর চেতনা থেকেই আসছে ‘বিপ্লব’।যা আগে চলত, আগে বলা হত তা এখন স্রেফ ব্যাকডেটেড, বস্তাপচা। আধুনিক বিশ্বে তা আর চলতে পারে না, তেমনই একটা দৃষ্টান্ত স্থাপনকরল এই নতুন বউ। তিনি যে বরের বিয়ে করা দাসী নন, এবং বাবা মায়ের ঋণও যে তাঁর পক্ষে শোধ করা সম্ভব নয়, তা স্পষ্ট বুঝিয়ে দিলেন বঙ্গ ললনা।




বিয়ে হয়ে গিয়েছে। মেয়ে এবার বাপের ঘর ছেড়ে স্বামীর ঘরে যাবে। আঁচল পেতে দাঁড়িয়ে মা। হিন্দু রীতি অনুযায়ী কনকাঞ্জলি-তে মেয়ে মায়ের আঁচলে মুঠো ভর্তি চাল ফেলে বলে যায়, ‘বাবা মায়ের ঋণ শোধ করে দিয়ে গেলাম।’ এখানেই প্রথা ভাঙল মেয়ে। নতুন বউ মায়ের আঁচলে মুঠো ভর্তি চাল তো দিয়ে গেলেন কিন্তু ঋণ শোধ করে গেলেন না। বরং বলে গেলেন, “বাবা মায়ের ঋণ শোধ করা যায় না। কোনও দিনই ঋণ শোধ করা যায় না।” এই কথা শোনা মাত্রই রে রে করে ওঠে সেখানে উপস্থিত অনেক কাকিমা-জেঠিমা। কী বলছিস রে? এমন প্রশ্নও করেন অনেকে।

তবে এতেও মেয়ে দমেনি। সে একই উত্তর দেয়, “বাবা মায়ের ঋণ আবার কি শোধ করব? এই ঋণ কোনও দিনই শোধ করা যায় না।” এরপর মেয়ের যখন বিদায়ী হচ্ছে, তখন নতুন বউয়ের এই ‘বিপ্লবে’ সমর্থন জানিয়েছেন অনেকেই। ‘ঠিক বলেছিস’, যা শুনে হেসে ফেলল নতুন বউ। এমনই একটি ভিডিয়ো সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। যা এখন নেট দুনিয়ার হট কেকে পরিণত হয়েছে।

https://www.facebook.com/NIOSnews/videos/319129058946914/




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!