OC-র তোলা আদায়ের প্রতিবাদ, আক্রান্ত ASI




মালদা, ১৯ জুলাই: থানার ওসি’র মোটা অঙ্কের তোলা নেওয়ার প্রতিবাদ করেছিলেন ওই থানারই এক এএসআই পদস্থ পুলিশ কর্মী।তার জেরে প্রতিবাদী পুলিশ কর্মীর কপালে জুটলো ওসি’র হাতের বেধরক মার।ওসি সহ তোলা আদায়ে জড়িত অন্যান্য পুলিশকর্মীরা বেল্ট সহ লাঠি দিয়ে ওই প্রতিবাদী পুলিশ কর্মীকে বেধরক মারধর করেন বলেই অভিযোগ।এই চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে মালদার ভূতনী থানায়।ভূতনী থানার ওসি তরুণ সাহা ওই প্রতিবাদী পুলিশ কর্মীকে বেধরক মারধর করে খুনের চেষ্টা করে বলে অভিযোগ।ওসি’র মারে গুরুতর আহত অবস্থায় আক্রান্ত পুলিশ কর্মী বর্তমানে চিকিৎসাধীন মালদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে।সুস্থ হয়েই ঘটনার বিবরণ দিয়ে পুলিশ সুপারকে অভিযোগ জানাবেন বলে জানিয়েছেন আক্রান্ত ওই এএসআই পদস্থ পুলিশ কর্মী।




আক্রান্ত পুলিশ কর্মীর নাম , মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম।এএসআই পদে ভূতনী থানায় কর্মরত পুলিশ কর্মী।মারধরের অভিযোগ উঠেছে ভূতনী থানার ওসি তরুণ সাহার বিরুদ্ধে।এছাড়াও ওসি’সাথে তলাবাজিতে জড়িত হয়ে ASI জাকির হোসেন,SI মনিরুল ইসলাম,ASI মনসুর আলী, ASI বিশ্বজিৎ মাহাতো এই সকল পুলিশ কর্মী মিলে থানার পুলিশ আবাসনের ভিতরে প্রতিবাদী পুলিশ কর্মী নুরুল ইসলামকে বেধরক মারধর চালায় বলেই অভিযোগ।এমনকি প্রাণে মেরে দেওয়ার চেষ্টা করেছে ওসি বলেই চাঞ্চল্যকর অভিযোগ তুলেছেন ওই আক্রান্ত পুলিশ কর্মী।

ঘটনা প্রসঙ্গে আক্রান্ত ASI নুরুল ইসলাম জানান,”থানার বোস তরুণ সাহা।গত মাসের ১৩ তারিখ গোদায় চরের বাসিন্দা মালা সিংকে গ্রেফতার করে।তার কাছে ছিলো আসল ২৩ হাজার টাকা।তাকে ছাড়ার জন্য ৫ লক্ষ টাকা চাই ওসি।কিন্তু মালা সিং টাকা দিতে না পারায় ২৩ হাজার টাকার জালনোটের মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দেয় ওসি তরুণ সাহা বলে এমনই বিস্ফোরক অভিযোগ করেন আক্রান্ত পুলিশ কর্মী।এলাকায় রাস্তার কাজের জন্য কোন্টাক্টরের কাছে ওসি ৭ লক্ষ টাকা নিয়েছে।রাজকুমার টোলার নদী বাঁধ মেরামতিতে নিযুক্ত ঠিকাদারের কাছে ১৪ লক্ষ টাকা ঘুষ নেই ওসি।উত্তরচন্ডিপুর প্রধানের সাথে মিলে বড়ো বাবু ২২ টি গাছ কেটেছে।সমস্ত টাকাই আত্মসাধ করেছে ওসি।দুষ্কৃতদের কাছে টাকা নেওয়ার ধান্ধা চালাচ্ছে ওসি।তৃণমূলের পুরো পক্ষে চলছে তার কাজ।প্রতিমাসে কম করে ৬ লক্ষ টাকা ঘুষ তলাবাজি তুলছে ওসি বলে অভিযোগ তার। ওসি’র এই সমস্ত তলাবাজি ঘুষের প্রতিবাদ করায় প্রথমে পুলিশ আবাসনের মেসে খাওয়ার বন্ধ করে আমার।বড়ো বাবু সহ সবাই মিলে প্রাণে মেরে দেওয়ার ইচ্ছায় থানার মধ্যেই এদিন বেল্ট লাঠি দিয়ে আমাকে মারধর করে খুন করতে সচেষ্ট হয়।কোনোক্রমে পালিয়ে এখন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছি।এখনো কোথাও অভিযোগ জানাতে পারেনি।পুলিশ সুপারের কাছে ওসি’র এমন কাণ্ডের অভিযোগ জানাবো”।

থানার ওসি তরুণ বাবু বেশ সপ্তাহ খানেক ধরে প্রথমে প্রতিবাদী এএসআই নুরুল ইসলামের পুলিশ আবাসন মেসে খাওয়ার বন্ধ করে দেয়।ওসি’র অত্যাচারে পরিচিতের বাড়ি নতুবা দোকানের খাওয়ার খেয়েই চলছিল দিন তার।কিন্তু বুধবার ওসি’র এই অত্যাচার চরমে পৌঁছায়।এদিন সকাল নাগাদ থানার মধ্যেই ASI নুরুল ইসলামকে বেধরক মারধর করে ওসি সহ অন্যান্য পুলিশ কর্মীরা।বেল্ট লাঠির বেধরক আঘাত থেকে নিজেকে বাঁচিয়ে কোনোক্রমে থানা থেকে পালায় ওই এএসআই।স্থানীয় মানুষদের সহায়তায় অসুস্থ রক্তাক্ত অবস্থায় থানায় ভর্তি হয় প্রতিবাদী পুলিশ কর্মী।তার দেহের একাধিক জায়গায় আগাতের চিহ্ন রয়েছে, রক্তও ঝরছে।হাসপাতালে চলছে তার চিকিৎসা।তবে ওসি’র বিরুদ্ধে থানার পুলিশ কর্মীর এমন অভিযোগ ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে পুলিশ মোহল সহ জেলা জুড়ে।যদিও সমস্ত অভিযোগ মিথ্যে,চক্রান্তের কথা জানিয়েছে ওসি তরুনবাবু।




You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!