বৈদ্যুতিক ফাঁদে প্রাণ গেল দুই বন্য হাতির




পশ্চিম মেদিনীপুর,১২ জানুয়ারি:পশ্চিমমেদেনীপুর জেলায় দুটি হাতির মৃত্যু হয়েছে। হাতি দুটির সামনে হাইটেনশনের তার ছিল। তাই ধারণা করা হচ্ছে, বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়েই মৃত্যু হয়েছে পূর্ণ বয়স্ক হাতি দুটির। এ ঘটনা ঘটেছে ওই জেলার বনবিভাগের অন্তর্গত চাঁদড়া রেঞ্জের নেপুরা গ্রামে। হাতি মৃত্যুর ঘটনায় এলাকায় রীতিমতো চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।




বেশ কয়েকদিন ধরে আনুমানিক ত্রিশ চল্লিশটির হাতির পাল গুড়গুড়িপাল, কনকাবতী, নেপুরা গ্রামে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। এ কারণে স্থানীয় মানুষ বেশ আতঙ্কের মধ্যে রাত্রীযাপন করতেন। এছাড়াও জমির ফসল, ঘরবাড়ি ভাঙার ঘটনাও ঘটেছে হাতির হানায়।

শুক্রবার রাতে জঙ্গল থেকে ঢুকে পড়ে নেপুরা গ্রামে হাতির পাল। তখন দলটিকে জঙ্গলে পাঠিয়ে দিলেও পরে আবার খাবারের সন্ধানে নেমে যায়। আর সেই সময় একটি ইঁট ভাটার কাছে বিপজ্জনকভাবে জমির উপর ঝুলে থাকা ইলেকট্রিক তারে স্পৃষ্ট হয়ে হাতির দুটির মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি স্থানীয়দের। তাদের আরও অভিযোগ, দিনের পর দিন বৈদ্যুতিক তার ঝুলে থাকলেও উদাসীন ছিল বিদ্যুৎ দপ্তর। এই তারে আরও ভয়াবহ ঘটনা ঘটার আশঙ্কা প্রকাশ করে গ্রামবাসী।

এই হাতি দুটির মধ্যে একটি হাতি দলের সর্দার ছিল বলে গ্রামবাসীরা জানিয়েছে। পরে হুলাপার্টির লোকজন হাতিগুলিকে জঙ্গলে পাঠিয়ে দেয়। জঙ্গলে ওঠার সময় শালডাঙ্গা গ্রামে তিনটি বাড়ি ভাঙে হাতির পালটি। পরে বনদপ্তরের লোকজন উপস্থিত হয়ে হাতি দুটি ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে।

বেঁচে থাকা অবস্থায় হাতিকে ছোঁয়া তো দূরের কথা, কাছে যাওয়ার সাহস নেই। তাই সেই সুযোগে হাতি দেখতে এবং দাঁত, শরীর, কানে হাত বুলাতে দূরদূরান্তের হাজার হাজার মানুষ ভিড় জমিয়েছে এলাকায়। সেই সঙ্গে উৎসুক জনতার মধ্যে সেলফি তোলার প্রবণতা চোখে পড়ে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!