অবশেষে শ্বাসরোধ করে খুন, অভিযোগ স্বামীর বিরুদ্ধে




মালদা, ১১জুলাই: মদ্যপ স্বামীর অকথ্য অত্যাচার প্রতিনিয়ত মারধর, অবশেষে শ্বাসরোধ করে খুনের অভিযোগ। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লো ওই গৃহবধূ। ঘটনা ঘিরে জোর চাঞ্চল্য ছড়াল মালদা থানার নারায়ণপুর এলাকার ঝাঁঝরা গ্রামে।ঘটনায় দেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে পুলিশ। ঘটনার পর থেকেই পলাতক অভিযুক্ত স্বামী।




 

পুলিশ সূত্রে জানাগেছে, মৃত গৃহবধূর নাম অনিতা দাস(২৩)। অভিযুক্ত স্বামীর নাম উত্তম দাস। পরিবার সূত্রে জানাগেছে, প্রায় ৩ বছর আগে ওই উত্তর দিনাজপুর জেলার হরিরামপুর এলাকার মেয়ে অনিতা দেবীর বিবাহ হয় মালদা থানার ঝাঁঝরা গ্রামের বাসিন্দা পেশায় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী উত্তম সাহার সাথে।দম্পতির বর্তমানে একটি দেড় বছরের কন্যা সন্তান রয়েছে। অভিযোগ, স্বামী উত্তম মদের নেশায় মগ্ন। বারবার স্ত্রীকে মারধর করে বাবার কাছ থেকে টাকা আনতে বলেন।

 

কিন্তু গৃহবধূর বাবা পেশায় ভিনরাজ্যের শ্রমিক থাকায় লাগামহীন বাড়তি পন বারবার দেওয়া সম্ভব হয়নি। প্রায় মাস দেড়েক আগে আবারও স্ত্রীকে মারধর করে বাবার বাড়ি পাঠিয়েদেই। তবে গত পরশু দিন সব মিটমাট করে স্ত্রীকে বাড়ি ফিরিয়ে আনে স্বামী উত্তম। মঙ্গলবার রাতে এবার মদ্যপ অবস্থায় স্ত্রীর ওপর অত্যাচার শুরু করে স্বামী। মারধরের পর গলায় ফাঁস লাগিয়ে ঝুলিয়ে দেয় বলে অভিযোগ। প্রতিবেশীরা ছুটে এসে উদ্ধার করে রাতেই মালদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন গৃহবধূকে। তবে ভোর রাতে মৃত্যু হয় আক্রান্ত গৃহবধূর।

 

ঘটনা প্রসঙ্গে মৃতার মেসো কাজল সরকার জানান, “বারবার যৌতুক নিয়ে প্রতিনিয়ত মারধর চালাতো উত্তম। স্বামী শ্বাসরোধ করে খুন করেছে মেয়ের। ঘটনায় থানায় অভিযোগ জানাবেন বলে জানিয়েছেন তিনি”। এদিকে ঘটনার পর থেকেই পলাতক অভিযুক্ত স্বামী উত্তম দাস। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

 




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!