মহাসমারোহে শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উৎসব পালন মন্দির নগরী মায়াপুরে




নদিয়া,৩ সেপ্টেম্বর:মহাসমারোহে শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উৎসব পালন মন্দির নগরী মায়াপুরে। নিজস্ব সংবাদদাতা, মায়াপুর। রাজ্যে মন্দির নগরী বলে খ্যাত শ্রীচৈতন্য ভূমি নবদ্বীপ এবং মায়াপুরের মন্দির গুলিতেও মহাসমারোহে পালন করা হল শ্রীকৃষ্ণের জন্ম উৎসব। শ্রী কৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উৎসব কে কেন্দ্র করে মন্দির নগরী নবদ্বীপের ছোট বড় সমস্ত মন্দির গুলিকে আলোক মালায় সাজিয়ে তোলা হয়।




বিশেষ করে শ্রীচৈতন্য এর জন্মস্থান থেকে শুরু করে নবদ্বীপ গৌড়ীয় মঠ, সারস্বত গৌড়ীয় মঠ, কেশবজি গৌড়ীয় মঠ, সমাজ বাড়ি, বিষ্ণুপ্রিয়া দেবী সেবিত বিষ্ণুপ্রিয়া মন্দির, গোবিন্দ মন্দির, সোনার গৌরাঙ্গ মন্দির, নরহরি ধাম মন্দির সহ ধামেস্বর মহাপ্রভু মন্দির। নবদ্বীপ পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডে মহাপ্রভু পাড়ায় অবস্থিত চৈতন্য জাযা বিষ্ণুপ্রিয়ার বংশধর সেবিত মহাপ্রভুর মন্দির। সোমবার ছিল ভগবান শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উৎসব।

এই উৎসব উপলক্ষে মহাপ্রভু মন্দিরে নদীয়াপতি শ্রীচৈতন্য কে শ্রীকৃষ্ণ রূপে সজ্জিত করে তোলা হয়। এরপর সারাদিন ধরে চলে হরি নাম সংকীর্তন। সন্ধ্যায় শুরু হয় ভগবান শ্রীকৃষ্ণের অভিষেক পর্বের প্রস্তুতি। সাতটা তিরিশ মিনিটে শুরু ভগবানের অভিষেক। সনাতনী ধর্মীয় রীতি নীতি মেনে তিন ঘন্টা ধরে চলে শ্রীকৃষ্ণের অভিষেক। সেসময় মন্দিরে উপস্থিত হাজারও ভক্তের উলুধ্বনি ও শঙ্খের ধ্বনিতে আকাশ বাতাস মুখরিত হয়ে ওঠে।

এদিকে পিছিয়ে ছিল না আর এক মন্দির নগরী মায়াপুর। সেখানেও প্রতিটি মন্দিরে পালন করা হল ভগবান শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উৎসব। নিমাইয়ের জন্মস্থান বলে দাবী করা শ্রীচৈতন্য মঠ সহ চৈতন্যের মাসির বাড়ি, উড়িয়া মঠ, চৈতন্য মিশন। শ্রীকৃষ্ণের জন্ম উৎসব কে সুন্দর ও সর্বাঙ্গীন করে তুলতে কোনও কসুর বাকি ছিলনা। মন্দির গুলিতে আলোকসজ্জা দিয়ে সাজিয়ে তোলা হয়।




You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!