বাড়ি তো নয় যেন প্রাচীন মুদ্রার সংগ্রহশালা, কয়েন ও কারেন্সি নেশায় মত্ত প্রধান শিক্ষক




উত্তর দিনাজপুর, ৯জুলাই: ঘরের ভেতর যদি সমস্ত সংগ্রহ সাজানো যায় তবে তা একটা মিউজিয়াম বলে মনে হওয়াটা অস্বাভাবিক কিছু নয়। সংগ্রাহকের সংগ্রহ দেখে অবাক না হয়ে উপায় নেই। কয়েন ও কারেন্সি সংগ্রহ করতে গিয়ে জীবনের কয়েক দশক তিনি লাগিয়ে দিয়েছেন। যার কথা বলা হচ্ছে তিনি সুশান্ত নন্দী। পেশায় একটি সরকারি স্কুলের প্রধান শিক্ষক হলেও কয়েন ও কারেন্সি সংগ্রহের নেশায় তিনি মত্ত। তার সংগ্ৰহে কি নেই সেটা যেন সহজে খুঁজে বের করাই মুস্কিল।




 

প্রাচীন থেকে বর্তমান পর্যন্ত নানান সংগ্রহের সিরিজে তার এই সংরক্ষণ ঋদ্ধ। যখন মুদ্রণ যন্ত্রই আবিস্কার হয়নি সেই সময়ে ধাতু কেটে তৈরি হতো মুদ্রা। সেই সময়কালের অর্থাৎ কনিস্ক, মুঘল কিংবা বাহমনি সাম্রাজ্যের মুদ্রা থেকে শুরু করে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির রৌপ্য মুদ্রা, স্বর্ণ মুদ্রা, তাম্র মোহর যেমন রয়েছে তার সংগ্রহে তেমনি ফুটো পয়সা, পাই পয়সা, নয়া পয়সা, আনা, সিক্কার মতো নানান দুষ্প্রাপ্য সংগ্রহের ধারাবাহিক সিরিজে তার অগুনতি এলবাম সাজানো রয়েছে। রয়েছে অনেক প্রাচীন নোটও। যা বর্তমান প্রজন্মের তেমন কেউ দেখেই নি। এছাড়াও শতাধিক দেশের প্রাচীন ও বর্তমান মুদ্রা তার সংগ্রহকে বাড়তি মাত্রা এনে দিয়েছে। শুধুই কি তাই! সংগ্রহের ঝুলিতে রয়েছে দেড়শ টাকা, একশো টাকা, ষাট টাকা সহ পুরোনো দশ টাকার কয়েনও।

 

এছাড়াও বিদেশের ডলার, পাউন্ড,ডিরহাম, রুবল, পেসো, মার্ক, ইউআন, ইয়েন, লিরা, পেনি কি নেই সেখানে। তবে মূল্যায়ন ও দুষ্প্রাপ্য মুদ্রা তার ব্যাংকের লকারেই রাখা থাকে। কোন দেশের মুদ্রার কি নাম, সেটির বর্তমান ভারতীয় মূল্য কতো এসবও যেন তার জানা। এসব শিক্ষার পাশাপাশি সুশান্ত বাবু জানান, শুধু এই বিষয়টিই নয় বরং মুদ্রা থেকে উঠে আসে সেই সময়কার ইতিহাস। কোন আমলে বা কোন যুগে কি ধরনের মুদ্রার প্রচলন ছিল তাও জানা যায় এই সংগ্রহ থেকে। আর তাই নিজের মেয়ে রূপকথাও যেন এখন থেকেই বাবার হাত ধরেই প্রস্তুত। শুরু হয়েছে ওর সংগ্রহ।

 

শুধু তাইই নয়, ছোটদের নিয়ে একটি গ্ৰুপও করেছেন তিনি। খুদেরাও এখন এই নেশায় মত্ত হয়ে উঠেছে। চলতি বছরেই ওই শিশুদের নিয়ে একটি প্রদর্শনীর প্রস্তুতি নিচ্ছেন তিনি। কয়েন ও কারেন্সি থেকেই ওদের নানান শিক্ষা দিতে চান সুশান্ত বাবু। ভবিষ্যতে জাতীয় স্তরের প্রদর্শনী তে অংশ নেবার জন্যই প্রস্তুত হচ্ছেন সুশান্ত বাবু। মনের অনুভবে জমে আছে একটি সংগ্রহশালা তৈরির স্বপ্ন। যে স্বপ্ন পূরণের কারিগর তিনি নিজেই না কি তার উত্তরসূরীরা;এর উত্তর দেবে একমাত্র ভবিষ্যৎ।

 




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!