ধরনায় বসল প্রাইভেট টিউটরস অ্যাসোসিয়েশন




জলপাইগুড়ি, ২৭ এপ্রিল : “প্রয়োজনে সব স্কুলেই যাব। দেখব শিক্ষক শিক্ষিকারা ঠিকমত তাদের ডিউটি পালন করছেন কিনা। কারণ আমাদের সংগঠন একটি বৈধ সংগঠন। এটা আমাদের অনিত্য দায়িত্বের মধ্যেও পড়ে যে, শিক্ষাব্যবস্থা ঠিকমত চলছে কিনা এটা দেখা। ভারতীয় নাগরিক হিসেবে এবং শিক্ষক সংগঠক হিসাবে এটা দেখা আমাদের দ্বায়িত্ব, আমরা দেখবো”- বৃহস্পতিবার জলপাইগুড়ি হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষকের অফিস ঘরের সামনে ধর্ণায় বসে মিডিয়াকে এই কথাগুলো বললেন ওয়েস্ট বেঙ্গল প্রাইভেট টিউটরস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন রাজ্য সভাপতি সুজয় বর্মন। কথাগুলো শুনে হাততালি দিয়ে উঠল উক্ত স্কুলেরই ছাত্ররা।




ওয়েস্ট বেঙ্গল প্রাইভেট টিউটরস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন জলপাইগুড়ি জেলা শাখার সদস্যরা বৃহস্পতিবার বেলা ১.১৫ মিনিট নাগাদ গিয়েছিলেন জলপাইগুড়ি হাই স্কুলে। স্কুলের প্রধান শিক্ষককে সরকারী নির্দেশিকা অমান্য করে গৃহশিক্ষকতা করা ওই স্কুলের দুইজন শিক্ষকের বিরুদ্ধে স্মারকলিপি দিতে।

স্কুলের প্রধান শিক্ষককে না পেয়ে ফিরে আসার সময় তারা জানতে পারেন ওই দুই শিক্ষকের একজন কাউকে কিছু না জানিয়ে স্কুল থেকে বেরিয়ে গেছেন। এরপরই ওয়েস্ট বেঙ্গল প্রাইভেট টিউটরস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন সদস্যরা প্রধান শিক্ষকের অফিস ঘরের সামনে ধর্ণায় বসে পড়েন।

অ্যাসোসিয়েশনরাজ্য সভাপতি সুজয় বর্মন দাবি করেন, “একজন শিক্ষক স্কুলে আসবেন, ইচ্ছেমত সই করে বেড়িয়ে যাবেন। তারপর ব্যক্তিগত কাজ সেরে স্কুলে যখন খুশি আসবেন, এইভাবে শিক্ষা ব্যবস্থা চলতে পারে না। আমাদের সরকার কোটি কোটি টাকা খরচ করছে। নতুন নতুন অভিনব উদ্যোগ নিচ্ছে শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নতির জন্য। কিন্তু কিছু নিকৃষ্ট মানসিকতার শিক্ষকের জন্য শিক্ষা ব্যবস্থার এই হাল হয়েছে।”

তিনি আরও জানিয়েছেন, “আমরা এর প্রতিবাদে প্রধান শিক্ষকের ঘরে সামনে বসে পড়লাম। যে শিক্ষক এইভাবে ফাঁকি দিয়ে মাইনে নিচ্ছে। স্কুলে ঠিকমত আসছে না বা এসে সই করে বেড়িয়ে যাচ্ছে তার বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা প্রশাসনকে নিতে হবে। আমরা ততক্ষণ এখানে বসে থাকব, যতক্ষন না এর কোনও ব্যবস্থা হচ্ছে।” অভিযুক্ত শিক্ষক বেলা ৩টে নাগাদ স্কুলে ফিরেছিলেন বলে জানা গিয়েছে।

ঘটনার খবর পেয়ে জলপাইগুড়ি জেলা উচ্চ বিদ্যালয় পরিদর্শক, সংশ্লিষ্ট স্কুলের বিদ্যালয় পরিচালন কমিটির সভাপতি ঘটনাস্থলে এসে পুরো ঘটনার তদন্ত করা হবে আশ্বাস দিলে বিকেল নাগাদ ধর্ণা তুলে নেন ধর্নাকারীরা।





You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!