জলের অভাব মেটাতে স্বেচ্ছাশ্রমে সেচনালা সংস্কার করল কৃষকরা




আলিপুরদুয়ার, ০২ আগস্টঃ প্রয়োজনের তুলনায় বৃষ্টি কম। জমিতে জল নেই। জলের অভাবে বর্ষাকালিন চাষাবাদ নিয়ে সমস্যায় কৃষকেরা। বর্ষার এক মাস পেরিয়ে গেলেও জেলার এখন বহু জমি ফাঁকা। চাষাবাদ নেই। এই অবস্থার কুমারগ্রাম ব্লকের খোয়ারডাঙ্গা এলাকার কৃষকেরা নিজেরাই উদ্যোগ নিয়ে স্বেচ্ছাশ্রমে সেচনালা সংস্কারে এগিয়ে এলেন। গত পাঁচ দিন ধরে তাদের অক্লান্ত পরিশ্রমে বুধবার সেচ নালা দিয়ে জল গড়ালো। সেচ নালা দিয়ে জল গড়াতেই খুশিতে মেতে ওঠেন কৃষকরা। এই সেচ নালার জলে উপকৃত হবে খোয়ারডাঙ্গা ১ ও ২ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার উত্তর নারারথলি, ছোটো দলদলি, গচিমারি তিনটি মৌজার কয়েক হাজার কৃষক।




জানা গিয়েছে, রায়ডাক ২ নদীর এক শাখা ঝোড়া থেকে ক্যাশশালী সেচ নালা এক দশক আগে তৈরী হয়। বর্ষায় ঝোড়ার ও সেচনালার মুখ ভেঙ্গে পরে। এতে ঝোড়ার জল আর সেচ দিয়ে বইতো না। বেশ কয়েক বছর যাবৎ বেহাল অবস্থায় পরে ছিল সেচ নালাটি। কিন্তু এবারে বৃষ্টির পরিমান কম হওয়াতে বর্ষা কালীন চাষাবাদ নিয়ে সমস্যায় পরে খোয়ারডাঙ্গার বিস্তীর্ণ এলাকার কৃষক। চাষাবাদ করার লক্ষ্যে এলাকার কৃষকদের নিজ উদ্যাগে স্বেচ্ছাশ্রম দিয়ে গত পাচ দিন ধরে অক্লান্ত পরিশ্রম করে ঝোড়ায় বাঁশ,কাঠের খুটি, মাটির বস্তা চাপা দিয়ে বাঁধ তৈরী করে। বাঁধ তৈরী হতেই ঝোড়ায় জল সেচ নালা দিয়ে বইতে শুরু করে। সেচ নালায় জল দেখে আনন্দে মেতে উঠে ওই এলাকার কৃষকরা।

ছোটো দলদলি,গচিমারী এলাকার কৃষক ছোবাহান মিঞা,রাহুল মিঞা,নির্মল অধিকারি, দারেন নার্জিনারী,আজিজার মিঞা প্রফুল্ল অধিকারী,সুনিল বসুমাতা,অসনি বিশ্বাস জানান, বৃষ্টির অভাবে বর্ষা কালীন চাষাবাদ করা যাচ্ছিল না। ফাঁকা পড়ে রয়েছে জমি। বীজতোলাও নষ্ট হয়ে যাওয়ার উপক্রম এই অবস্থায় জমিতে ধান চাষ করতে না পারলে ফলন ভালো হবে না। তাই আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকলে এবছর চাষাবাদ করা সম্ভব হবে কিনা অনুভব করে করে প্রায় তিনটি মৌজার কৃষকরা সেচ নালা সংস্কারে এগিয়ে আসেন। স্বেচ্ছাশ্রম সহ আর্থিক সহযোগিতা করে সেচনালা সংস্কার করলেন তারা।

কৃষকদের এই উদোগকে স্বাগত জানিয়েছেন খোয়াডাঙ্গা ২ নং উপ প্রধান জেমস বরগাঁও, তৃণমূল কংগ্রেস কুমারগ্রাম ব্লক সংখ্যালঘু সেলের সভাপতি গোলাপ হোসেন।
কুমারগ্রাম পঞ্চায়েত সমিতির সহ সভাপতি বিপ্লব নার্জিনারী জানান, সেচ নালা সংস্কার করার বিষয়টি ধরাই ছিল। সেচ দপ্তরের সঙ্গে কথা বলে স্থায়ী সেচনালা তৈরী করার উদ্যোগ নেওয়া হবে জানান তিনি ।




You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!