ফেসবুক লাইভে দলীয় কর্মীদের ক্ষোভ প্রশমিত করার চেষ্টা সোমেন মিত্রর




কলকাতা, ৮জুলাই: রাহুল গান্ধীর সঙ্গে বৈঠকে তৃণমূলের সঙ্গে জোট করতে বলা নিয়ে দলীয় কর্মীদের মধ্যে তৈরি হওয়া ক্ষোভ প্রশমিত করার চেষ্টা করলেন প্রাক্তন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র। এদিন ফেসবুক লাইভে তিনি সরাসরি দলীয় কর্মীদের সঙ্গে কথা বললেন। সেখানে তিনি বলেন, আগ বাড়িয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে জোট করার কথা বলেননি। কংগ্রেস সর্বভারতীয় সভাপতি তার কাছে জানতে চেয়েছিলেন এই মুহূর্তে কার সঙ্গে জোট করা উচিত? জবাবে তিনি জানিয়েছেন, আশু ফলাফল চাইলে তৃণমূলের সঙ্গে জোট করা যেতে পারে তবে কংগ্রেস সংগঠনকে বাঁচাতে চাইলে বামেদের সঙ্গে জোটের কথা ভাবা উচিত জাতীয় নেতৃত্বের।




 

পাশাপাশি তিনি এও জানিয়ে দেন, ২০১১ সালে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূলের সঙ্গে জোট করেছিল কংগ্রেস কিন্তু পরবর্তীতে দেখা যায়, তৃণমূল বিধায়কদের ভাঙতে শুরু করেছে। আর যার কারণেই এই মুহূর্তে কংগ্রেস সংগঠনের এই দশা। যেহেতু আদর্শগত দিক থেকে কংগ্রেস এবং তৃণমূল সমভাবাপন্ন, সে কারণে কংগ্রেস বিধায়ক ও কর্মীদের তৃণমূল কংগ্রেসে যাওয়া সহজ। অন্যদিকে, আদর্শগত পার্থক্য থাকার কারণেই বামেদের সঙ্গে জোট করলে দলবদলে অবস্থা তৈরি হবে না। সোমেন মিত্র মনে করছেন, এর ফলে দল শক্তিশালী হবে। এই কথা যে তিনি রাহুল গান্ধীকেও বলেছেন ফেসবুকে দলীয় কর্মীদের তা জানান এই বর্ষীয়ান নেতা। আশু সাফল্য এবং সংগঠনিক কাঠামোকে শক্তিশালী করা, এই দুইয়ের মধ্যে কোনটা হাইকমান্ড চায় তা তাদেরই ঠিক করতে হবে বলে মনে করছেন সোমেন মিত্র।

 

এদিন এই বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা প্রশ্ন তুলেছেন, তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী যখন ফেডারেল ফ্রন্টই চাইছেন, তবে কেন অন্যের দলকে ভেঙে দিচ্ছেন তিনি? এখানেই কংগ্রেসের হয় আর সে কারণেই আমরা বলছি দলকে শক্তিশালী করতে চাইলে বামেদের সঙ্গেই আমাদের যাওয়া উচিত তাতে অন্তত দল বাঁচবে বলে মত তার। সংগঠনের দৈন্যদশা নিয়েও এদিন মুখ খোলেন প্রদেশ কংগ্রেসের এই প্রাক্তন সভাপতি। এদিন তিনি মেনে নিয়েছেন এই মুহূর্তে নিজের পায়ে দাঁড়ানোর মত ক্ষমতা এ রাজ্যের কংগ্রেসের নেই। আর সে কারণেই তিনি বলেছেন, পশ্চিমবঙ্গে কংগ্রেসকে আগে নিজের পায়ে দাঁড়াতে হবে। আর এই কাজ করতে গেলে কংগ্রেস নেতৃত্বকে বুথস্তর পর্যন্ত পৌঁছতে হবে। এখানে আমাদের নেতৃত্বের অভাব রয়েছে।

 

উল্লেখ্য এদিন বারোটায় নিজের ফেসবুক পেজে লাইভ থাকার কথা থাকলেও এক্যাউন্টটি হ্যাক হওয়ায় তিনি সেখানে উপস্থিত হতে পারেননি। তার বদলে সোমেন মিত্র তার ছেলে রোহন মিত্রের ফেসবুক একাউন্টটিতে লাইভে আসেন এবং দলীয় কর্মীদের সকল প্রশ্নের উত্তর দেন। তিনি এও জানিয়েছেন, এই দিনের উত্তরের পরেও দলীয় কর্মীদের মনে সংশয় থাকলে আবারও তিনি ফেসবুক লাইভে আসবেন এবং কর্মীদের সব প্রশ্নের উত্তর দেবেন।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!