রয়েছে খ্যাতি, জমির সমস্যার জন্য বন্ধ বিঞ্জানে পাঠক্রম




জলপাইগুড়ি, ৯ জুলাই: ২০১৫ সালে রাজ্য সেরা স্কুলের স্বীকৃতি। স্কুলের ঝুলিতে রয়েছে শিশু মিত্র পুরস্কার, যামিনী রায় পুরস্কার (২০১৭), রয়েছে ভলিবলে রাজ্য সেরা হবার শিরোপা, স্কুলের ছাত্রীরা তাইকন্ডোতে জাতীয় স্তরে খেলছে অথচ স্কুলটি দীর্ঘদিন ধরে জমি সমস্যায় ভুগছে। জমি সমস্যার জন্য ২০১২ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পাঠক্রমে বিজ্ঞান শাখায় অনুমোদন পেয়েও চালু করা যায় নি। আমরা কথা বলছি জলপাইগুড়ি মাড়োয়ারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় নিয়ে। ১৯৩৩ সালে শহরের দিনবাজারে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।




স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা লক্ষ্মী বাগচী জানান, স্কুলের নাম মাড়োয়ারি হলেও বর্তমানে কোন মাড়োয়ারি মেয়ে এই স্কুলে পড়ে না। কারন উচ্চ মাধ্যমিকের পরে এখানকার ছাত্রীদের হিন্দীর পরিবর্তে বাংলা মাধ্যম কলেজে পড়াশোনা করতে হয়। তিনি জানান, তার স্কুলের অধিকাংশ ছাত্রী এসটি, এসসি, ওবিসি। ২০০৮ সাল থেকে তিনি জমির জন্য দরবার করে আসছেন। কিন্তু দশ বছর অতিক্রান্ত জমি মেলেনি। দুজন জেলাশাসক পৃথা সরকার এবং রচনা ভগৎ জমির জন্য সুপারিশ করেছিলেন।

রাজ্য শিক্ষা দপ্তর থেকে ভূমি ও ভূমি সংস্কার দপ্তরকে জমি দেওয়ার অনুরোধ জানিয়ে চিঠিও দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তবুও এই সংক্রান্ত প্রস্তাব ভূমি ও ভূমি সংস্কার দপ্তরে ফাইল বন্দি হয়ে পড়ে রয়েছে। লক্ষ্মী দেবী জানান, জমির অভাবে বিজ্ঞান বিভাগ চালু করতে পারছি না। স্কুলের মেয়েরা খেলাধুলায় খুবই ভালো। নিজেদের মাঠ না থাকা স্বত্বেও স্কুলের মেয়েরা রাজ্যস্তরে, জাতীয়স্তরে খেলছে। চেয়ে চিন্তে অন্য মাঠে অভ্যাস করছে, জমি পেলে আমাদের মেয়েরা আরো ভালো ফল করতে পারতো। জমি পেলে হোস্টেল নির্মাণ করা যাবে, এতে দূরদূরান্ত থেকে আসা ছাত্রীদের সুবিধা হবে।

তিনি আরও বলেন, উচ্চ মাধ্যমিকের পরে এই শহর এবং তার আশেপাশের এলাকার হিন্দী মাধ্যমের পড়ুয়ারা সমস্যায় পড়ে যায়। তাই জলপাইগুড়িতে একটা হিন্দী মাধ্যমের কলেজ হলে খুবই ভাল হয়। তারা এই স্কুলের সাথে হিন্দী মাধ্যমের কলেজের প্রস্তাবও দিয়েছেন। এখন দেখার কবে এই সমস্যার সমাধান হয়।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!