BSF জওয়ানের গুলিতে মৃত ১ ব্যক্তি




মুর্শিদাবাদ, ৯জুলাই: ফের গরু পাচারের অভিযোগে বিএসএফ জওয়ানরা আরও এক গ্রামবাসীকে গুলি করে মারার অভিযোগে চাঞ্চল্য মুর্শিদাবাদের রানিনগর থানার চরদূর্গাপুরের হারুডাঙা চর এলাকায়। অভিযোগ কাহারপাড়া বিওপির বিএসএফ জওয়ানদের বিরুদ্ধে। মৃত গ্রামবাসীর নাম মিহির মণ্ডল (৫০)। মৃতের বাড়ি চরদূর্গাপুর এলাকায় বলে জানা গিয়েছে।




উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার ওই স্থানেই লক্ষীনারায়নপুর এলাকার দুই গ্রামবাসীকে বিএসএফ জওয়ানরা গুলি করে মেরে ছিল বলে বাড়ির লোকেরা অভিযোগ করলেও পরিবারের লোকেরা তাদের প্রিয়জনের মৃতদেহ হাতে পাননি। রানীনগর থানা বা বিএসএফ এর পক্ষ থেকে এই কথা স্বীকার করা হয়নি।

ভারত বাংলাদেশ সীমান্তে মুর্শিদাবাদ জেলার রানিনগর থানার হারুডাঙা চর। সীমান্তে রয়েছে কাহারপাড়া বিওপি। সীমান্ত এলাকা দিয়ে দুই দেশের মধ্যে প্রতিদিন চলে গবাদি পশু, খাদ্য দ্রব্য সহ দৈনন্দিন প্রয়োজনীয় দ্রব্যের চোরাচালান। দুই দেশের চোরাচালান রুখতে গেলে চোরাচালানকারী ও বিএসএফ জওয়ানদের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। সূত্রে খবর, সোমবার ভোর চারটে নাগাদ বেশ কয়েকজন চোরাচালানকারী গরু নিয়ে বাংলাদেশে পাচারের উদ্দেশ্যে যাচ্ছিল। সেই সময় কর্তব্যরত বিএসএফ জওয়ানরা দেখতে পেয়ে তাদের দাঁড়াতে বলে।

কিন্তু চোরাচালানকারীরা জওয়ানদের নির্দেশ অমান্য করে বাংলাদেশ সীমান্তের দিকে এগিয়ে যেতে থাকলে চোরাচালানকারীদের সঙ্গে বিএসএফের সংঘর্ষ বাঁধে বলে জানা গিয়েছে। গ্রামবাসীদের অভিযোগ সোমবার ভোরে মৃত মিহির মন্ডল হারুডাঙ্গার চরে চাষের জন্য যাচ্ছিল। সঙ্গে পরিচয় পত্র থাকা সত্ত্বেও বিএসএফ জওয়ানরা ওইগ্রামবাসীকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। এবং বিএসএফ এর গুলিতে মারা যায় মিহির মন্ডল। এরপরেই গ্রামবাসীরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখে বুকের বাম দিকে গুলিবিদ্ধ এবং রক্তাক্ত অবস্থায় মিহির মন্ডলের মৃতদেহ পড়ে রয়েছে। বাড়ির লোকেরা খবর পেয়ে মৃতদেহ উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে আসে। মাঝে মধ্যেই বিএসএফ এর গুলিতে গ্রামবাসীদের প্রান যাচ্ছে এই অভিযোগের ভিত্তিতে স্থানীয়রা রানীনগর থানায় বিক্ষোভ দেখায়। পুলিস এই বিষয়ে আশ্বাস দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে যদিও এই বিএসএফ এর পক্ষ থেকে এই মৃত্যুর বিষয়ে কোন প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

অপরদিকে রানীনগর থানার ওসি অরূপ রায় জানান, হারুডাঙ্গারচর থেকে একটি গুলিবিদ্ধ মৃতদেহ তারা উদ্ধার করেছে। তবে বিএসএফ না চোরাচালান কারীরা কারা এই গুলি করেছে সে বিষয়ে পরিস্কার ভাবে কিছুই বলা যাচ্ছে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পর সব কিছু পরিস্কার হবে। পরিবারের তরফ থেকে রানীনগর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিস তদন্ত শুরু করেছে। মৃতদেহটি ময়না তদন্তের জন্য লালবাগ মর্গে পাঠান হয়েছে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!