ফের রাজনৈতিক সংঘর্ষে উত্তপ্ত বীরভূম




বীরভূম,১৭ এপ্রিল:দফায় দফায় দুবরাজপুর বিধানসভার বিভিন্ন গ্রামে তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষ। আহত দুই পক্ষের বেশ কয়েকজন রাজনৈতিক কর্মী। প্রথম সংঘর্ষ শুরু হয় দুবরাজপুর বিধানসভার অন্তর্গত কাঁকরতলা থানায়, এরপর আজ সকালে দুবরাজপুর থানার অন্তর্গত পদুমা গ্রাম পঞ্চায়েতে।




বিজেপির পতাকা লাগানোকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত লোকপুর।ঘটনার সূত্রপাত গতকাল রাত্রে। বিজেপি কর্মীদের অভিযোগ দলীয় পতাকা লাগানোর সময় তৃণমূলের কর্মীরা বাধা দেয় এবং তাদের উপর চড়াও হয়ে হামলা চালায়। ঘটনায় বেশ কয়েকজন বিজেপি কর্মী আহত বলে অভিযোগ।

অন্যদিকে তৃণমূলের পক্ষ থেকে ঘটনাকে অস্বীকার করে জানানো হয়, অনুমতি ছাড়া জোরজবস্তি তৃণমূল কর্মীদের বাড়িতে বিজেপির পতাকা টাঙাতে গেলে বাধা দেয় ওই তৃণমূল কর্মী। আমাদের দুজন কর্মী পতাকা টাঙাতে বারণ করায় মারধর করে বিজেপির লোকেরা। আহত ওই দুই কর্মীকে আমাদের অন্যান্য কর্মীরা উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। তারপর ওই বিজেপি কর্মীরা রাতের অন্ধকারে লুকিয়ে পড়ে। এই রেশ কাটতে না কাটতেই অপরদিকে দুবরাজপুর বিধানসভার অন্য প্রান্তে ফের বিজেপি কর্মীদের ওপর চড়াও হয়ে মারধর করার অভিযোগ শাসকদলের বিরুদ্ধে।

বিজেপির অভিযোগ আজ সকালে দুবরাজপুরের পদুমা গ্রাম পঞ্চায়েতে বসহরি গ্রামে চলছিল বিজেপির দেওয়াল লিখনের কাজ। ঠিক সেই সময় কয়েকজন তৃণমূল কর্মী অতর্কিতে হামলা চালায় বিজেপি কর্মীদের ওপর। দেওয়াল লিখনের সময় তৃণমূলের বাইক বাহিনী এসে তাণ্ডব চালায়। বিজেপি কর্মীদের লক্ষ্য করে গুলি চালায় এবং লুটপাট আরম্ভ করে। ঘটনায় ১৪ জন আহত হয়েছেন তাদের মধ্যে ৭ জন গুরুতর আহত গুরুতর আহতদের সিউড়ি সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সেই মুহূর্তে গ্রামের লোক আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন।হামলার পরিপ্রেক্ষিতে স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব ভোলা মিত্র ঘটনার কথা অস্বীকার করে বলেন, “একটা ঝামেলা হয়েছে শুনেছি। তবে আমাদের ছেলেরা করেনি। কে বা কারা ঝামেলা করেছে সে বলতে পারব না। আমাদের ছেলেরা ঝামেলা করলে আমরা জানতে পারতাম।”

তবে একটা কথা খুবই পস্ট, অন্যান্য নির্বাচনের মতোই এবারের লোকসভাতেও বীরভূমের মাটি বেশি উত্তপ্ত হচ্ছে তা বলাই বাহুল্য।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!