গ্রাহককে হয়রানি ও দুর্ব্যবহার, জরিমানা ক্রেতা সুরক্ষা আদালতের




বালুরঘাট, ১ জুন: মোবাইল সারাই করার নাম করে গ্রাহককে একাধিকবার হয়রানির অভিযোগ কাস্টম কেয়ারের বিরুদ্ধে। মোবাইল সারাই এর বদলে উলটে আরও বেশি নষ্ট করে দেওয়া হয় গ্রাহকের মোবাইল। ঘটনায় ক্রেতা সুরক্ষা আদালতে মামলা দায়ের করেন সাধন অধিকারী নামে এক গ্রাহক।




দীর্ঘ দেড় বছর পর অবশেষে ক্রেতা সুরক্ষা আদালত ও ক্রেতা সুরক্ষা কমিশনের রায় বের হয় শুক্রবারে। ওই মোবাইল কাস্টম কেয়ারকে ৩৭ হাজার ২২৫ টাকা জরিমানা করা হয়। এদিন জেলা ক্রেতা সুরক্ষা আদালতে জরিমানার টাকা তুলে দেওয়া হয় সাধনবাবুর হাতে।

জানা গিয়েছে, তপন থানার মোক্তারামপুর এলাকার বাসিন্দা সাধন অধিকারী। ২০১৬ সালে নভেম্বর নিজের স্যামসং কোম্পানীর একটি মোবাইল সারাই এর জন্য বালুরঘাট কাস্টম কেয়ারে দেন। অভিযোগ, সেখানে ফোনটি ঠিক করার বদলে উলটে আরও নষ্ট করে দেওয়া হয়। এমনকি মোবাইল ঠিক করে দেওয়া হবে বার বার ডেকে এনে হয়রানি করা হয়। বেশ কয়েকবার এইভাবেই চলে। তাও মোবাইল সারাই না হওয়ায় তা নিতে অস্বীকার করেন সাধনবাবু। এদিকে কাস্টম কেয়ার মালিক থেকে কর্মীরা দুর্ব্যবহার করেন সাধনবাবুর সঙ্গে।

এরপর গত ২০১৬ সালে নভেম্বর মাসে দক্ষিণ দিনাজপুর ক্রেতা সুরক্ষা আদালতে মামলা দায়ের করেন তিনি। মামলা দায়ের করার তিন মাসের মধ্যে জেলা ক্রেতা সুরক্ষা আদালত রায় দেন সাধনবাবুর হয়ে। মোট ২৭ হাজার টাকা জরিমানা করা হয় অভিযোগ ওঠা মোবাইল কাস্টম কেয়ারের বিরুদ্ধে। এর পর অভিযোগ ওঠা ওই কেয়ার ক্রেতা সুরক্ষা কমিশনে মামলা করেন। সেখানেও মামলার রায় যায় সাধনবাবুর পক্ষেই। অবশেষে এদিন অযথা হয়রানি সহ একাধিক কারণে ৩৭ হাজার ২২৫ টাকা জরিমানা করা হয় অভিযুক্ত মোবাইল কাস্টম কেয়ারের বিরুদ্ধে। সেই জরিমানার টাকা ক্রেতা সুরক্ষা আদালতেই সাধনবাবুর হাতে তুলে দেওয়া হয়।

এবিষয়ে সাধন অধিকারী জানান, মোবাইল সারাই এর নামে কাস্টম কেয়ার তার সঙ্গে অযথা হয়রানি করে ও দুর্ব্যবহার করে। এদিকে মোবাইল ঠিক করার বদলে তা আরও খারাপ করে দেওয়া হয়। এর বিরুদ্ধে তিনি ক্রেতা সুরক্ষা আদালতে মামলা দায়ের করেন। এবং আজ রায় তার পক্ষে যায় এবং তিনি জরিমানা বাবদ ৩৭ হাজার ২২৫ টাকা পান। কাস্টম কেয়ার গুলি পরিষেবা দবার বদলে এমনটাই করে থাকে বলে অভিযোগ করেন তিনি।




You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!