মালদা ও মুর্শিদাবাদকে মাদক ইন্ডাস্ট্রিতে পরিণত করেছে মাদক কারবারীরা




মালদা,০৪ অক্টোবর:-মালদা ও মুর্শিদাবাদকে মাদক ইন্ডাস্ট্রিতে পরিণত করেছে মাদক কারবারীরা৷ কালু শেখ ও নজরুল শেখের পর গতকাল মুর্শিদাবাদের সামশেরগঞ্জ থানার নতুন জালাদিপাড়া গ্রাম থেকে ধৃত মাদক কারবারী আলম হোসেনকে আজ মালদা জেলা আদালতে তোলা হয়৷




উল্লেখ্য, গত ২৭ সেপ্টেম্বর রাতে কালিয়াচকের মোজমপুর গ্রাম থেকে গ্রেফতার করা হয় নজরুল শেখ নামে মাদক কারবারের এক চাঁইকে৷ সে মাদক ইনজেকশন তৈরিতে সিদ্ধহস্ত৷ মাদক কারবারের অভিযোগে ২০১০ সালে বাংলাদেশে সে গ্রেফতার হয়৷ গত ২৮ সেপ্টেম্বর মালদা জেলা আদালতের অ্যাডিশনাল সেশন জজের নির্দেশে নজরুলকে নিজেদের হেপাজতে নেয় এনসিবি৷ তাকে জেরা করে উঠে আসে আলম হোসেনের নাম৷

অবশেষে গতকাল সামশেরগঞ্জের নতুন জালাদিপাড়া গ্রাম থেকে গ্রেফতার করা হয় আলমকে৷ তার হেপাজত থেকে বাজেয়াপ্ত হয় ১৮২৫ অ্যাম্পুল ব্যুপ্রেনরফিন ইনজেকশন৷ যার বাজারমূল্য প্রায় ৬ লক্ষ টাকা৷ এদিন এনসিবি’র আইনজীবী সুদীপ্ত গঙ্গ্যোপাধ্যায় বলেন, গত ২৪ জুলাই এনসিবি মালদা থেকে শেখ কালু নামে এক মাদক কারবারীকে গ্রেফতার করে৷ তার হেপাজত থেকে ৪৯৭৭ অ্যাম্পুল মাদক ইনজেকশন বাজেয়াপ্ত হয়৷

এই ইনজেকশন মাদক হিসাবে চিহ্নিত৷ তাকে জেরা করে উঠে আসে নজরুল শেখের নাম৷ নজরুলের তৈরি মাদক ইনজেকশন মালদা, লালগোলা হয়ে দেশের বিভিন্ন জায়গা, এমনকি বাংলাদেশেও পাচার হত৷ জেরায় নজরুল জানায়, সামশেরগঞ্জের আলম হোসেনের কাছে আরও এমন ইনজেকশন রয়েছে৷ গতকাল রাতে আলমকে গ্রেফতার করা হয়৷ আজ তাকে আদালতে তোলা হয়েছে৷ তবে আলমকে তাঁরা এনসিবি হেপাজতে চাইছেন না৷

তাকে জুডিশিয়াল কাস্টডিতে রেখে এনসিবি এনিয়ে আরও তদন্ত করতে চায়৷ সুদীপ্তবাবু আরও বলেন, তাঁদের আশঙ্কা, মালদা ও মুর্শিদাবাদকে মাদক ইন্ডাস্ট্রিতে পরিণত করেছে মাদক কারবারীরা৷ তবে এনিয়ে আরও তদন্ত প্রয়োজন৷




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!