দিদির প্রেমিকের হুমকি, গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মঘাতী ভাই




হরিহরপাড়া, ১২জুলাই: দিদির প্রেমিকের হুমকির মুখে পরে গলায় ফাঁস লাগিয়ে ভাই আত্মঘাতী। মৃত ভাইয়ের নাম সাবির সেখ(১২)। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার দুপুরে হরিহরপাড়া থানার কেদারতলা গ্রামে। সুত্রের খবর, দীর্ঘ ৩বছর ধরে সাবিরের দিদির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক তৈরী হয় হরিহরাপাড়া থানার বড়হান এলাকার দিনমজুর এক যুবক নাজমুল সেখের। পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, সাবিরের দিদি নাজমুলের সাথে অবৈধ্য সম্পর্কের জেরে ৬মাসের অন্তঃস্তত্বা হয়ে পরে। এবং নাজমুল তার প্রেমিকাকে ভয় দেখিয়ে অবৈধ্য ভাবে গর্ভপাত করিয়ে নেয়। এই কথা জানতে পারে মৃত সাবিরের পরিবার। তারপর থেকে সাবিরের পরিবার থেকে নাজমুলকে বিয়ের জন্য চাপ দেওয়া হয়।




 

 

কিছু দিন আগে গ্রামে সভা ডেকে বিয়ের প্রস্তাব দিলে নাজমুল সেই প্রস্তাব মেনে নেব বলে স্বীকার করলেও পরে তা অস্বীকার করে এবং প্রেমিকের বাড়ির লোককে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকিও দেয়। গত কয়েক দিন আগে সাবিরের পরিবার জানতে পারে প্রেমিক নাজমুল ৩মাস আগে অন্য মেয়েকে বিয়ে করেছে। বুধবার সাবিরের বাড়ির লোকজন নাজমুলের বিরুদ্ধে হরিহরপাড়া থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। এই কথা জানতে পারে নাজমুল, তারপর থেকে বারবার প্রেমিকার বাবা, মা এবং ভাইকে ক্রমাগত ফোনে হুমকি দিতে শুরু করে সে।

 

 

বৃহস্পতিবার সকালেও সাবিরের পরিবার হরিহরপাড়া থানায় আবার অভিযোগ দায়ের করেন। এরপর সপ্তম শ্রেনীর ছাত্র মৃত সাবির সেখকেও বারবার প্রেমিক নাজমুলের হুমকির মুখে পড়তে হয় এবং সাবির স্কুলে যাওয়া আসা বন্ধ করে দেয় নাজমুলের ভয়ে। বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রেমিক নাজমুল মৃত ছোট্ট সাবিরকে হুমকি দিয়ে বলে যে তারা যেন থানা থেকে অভিযোগ পত্র তুলে নেয় না হলে তাদের পরিবারকে প্রানে মেরে দেবে। এই হুমকির মুখে পরে বৃহস্পতিবার দুপুরে ছোট্ট সাবির তার নিজের বাড়িতে গিয়ে ঘরে ঢুকে গলায় ফাঁস লাগিয়ে ঝুলে পরে। পরিবারের লোক অনেকক্ষণ ঘর বন্ধ দেখে ডাকাডাকি করে কোন সাড়া শব্দ না পেয়ে দরজা ভেঙ্গে দেখে সাবির গলায় ফাঁস লাগিয়ে ঝুলছে।

 

 

তড়িঘড়ি পরিবারের লোকজন তাকে স্থানীয় হরিহরপাড়া স্থানীয় গ্রামীন হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন। এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। পুলিস মৃতদেহটি উদ্ধার করে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত যুবক নাজমুল সেখ পলাতক বলে জানা গিয়েছে।




You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!