নৃত্যশিল্পী অলকানন্দা রায়ের কিছু মুহুর্ত




কলকাতা, ৮জুলাই: মায়ের হাত ধরেই প্রথম নাচ ও গানের জগতে পা দেন বিশিষ্ট নৃত্য পরিচালক অলকানন্দা রায়। গুরু মধুমিতা দাসের কাছে প্রথম হাতে খড়ি দেওয়ার পর সংযুক্তা পালের কাছে ভারতনাট্যম নৃত্যশৈলির প্রশিক্ষণ নেন তিনি। পশ্চিমবঙ্গের কার্ণিকাল হোমসের অপরাধীদের নির্জন জগৎ থেকে মুক্ত করতে “বাল্মিকী প্রতিভা” নামে একটি নৃত্যনাট্যও পরিচালনা করেন অলকানন্দা রায়, যা ওই জেলের বন্দিদের সামাজিক জীবনে ফিরে আসতে সাহায্য করেছিল। বঙ্গবিভূষণ পুরস্কার প্রাপ্ত অলকানন্দা রায় ১৯৬৯ সালে মিস্ ক্যালকাটা হন এবং পরবর্তীকালে তিনি মিস্ ইন্ডিয়াও হন।




নাচের জগতে তিনি সাফল্য লাভ করেন। ২০০৪ সালে তিনি ভারত নির্মাণ পুরস্কার পান এবং তিনি রাষ্ট্রীয় সঙ্গীত একাডেমী থেকেও পুরস্কার পান। তিনি মনে করেন তার জীবনের সব থেকে বড় শক্তি তার মা। নাইজেলের কথা তিনি বলেছেন – জীবনে দুটো মা, এক নিজের মা অন্যজন হলেন তিনি নিজে। স্বাধীনচেতা মনের অধিকারী অলকানন্দা রায় স্বাধীনভাবে বাঁচতে ভালবাসেন। অসহায় শিশুদের মধ্যে শিক্ষার প্রসার ঘটানোর জন্য বিশিষ্ট নৃত্যশিল্পী অলকানন্দা রায় Touch World Labour এর সন্তানদের নিয়ে নতুন সংগঠন তৈরি করার পরিকল্পনা শুরু করেছেন।

‘Save The Children’ প্রকল্পে তিনি হাজার হাজার দুস্থ ছেলেমেয়েদের বাড়ি ঘুরে ঘুরে তাদের সাথে থাকার আস্থা দিয়ে এসেছেন। নৃত্যের পাশাপাশি তিনি সমাজ সচেতনতার বিষয়েও ওয়াকিবহাল থাকেন। ৬৫ বছর বয়সে এসেও তিনি একই সঙ্গে কিছু অসহায় পরিবার চালান। তিনি একটি স্কুলও তৈরি করেন এবং সেখানে অসহায় বাচ্চাদের বিনা পয়সায় পড়ানো হয়। সব সময় তিনি নতুনত্বকে খুব ভালবাসেন যা তার কাজের মধ্যে দিয়ে তিনি আমাদের সামনে বারবার উপস্থাপিত করেছেন। বটগাছের মত তিনি অসংখ্য অসহায় মানুষকে ছায়া দিয়ে যাচ্ছেন, যার মধ্যে দিয়ে তিনি নিজের জীবনের অর্থ খুঁজে পান। বাংলার পর্বের পক্ষ থেকে আগামী দিনে তার উজ্জ্বল ভবিষ্যতের জন্য অনেক শুভেচ্ছা রইল এবং তার দীর্ঘায়ু কামনা করা হল।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!