মোরে সীমান্তে ১০ কেজি ৫০০ গ্রাম সোনা সহ গ্রেপ্তার ৩




শিলিগুড়ি, ১২জুলাই: পাচারের ঘটনায় ব্যবহার করা হয়েছে ইন্দো মায়ানমারের ‘মোরে’ সীমান্ত। বুধবার গোপনসূত্রে খবর পেয়ে অভিযান চালিয়ে ৩ কোটি ৩০ লক্ষ ৭ হাজার টাকার সোনা সহ চারজনকে গ্রেপ্তার করে ডিআরআই। ধৃতদের কাছ থেকে ১০ কেজি ৫০০ গ্রাম সোনা উদ্ধার হয়েছে। ধৃতরা প্রত্যেকেই মিজোরামের বাসিন্দা। ধৃতরা হল আইজলের বাসিন্দা জেসন লালথলামুয়াউয়া, লালপেক্কিমা, লালদাভিডা লাল্টলানা ও ভেংথলাঙ্গের লালদুহা।




 

 

‘মোরে’ সীমান্ত পার করে এদেশে প্রবেশ করে এই চার পাচারকারীরা। এরপর বুধবার সকালে সিকিম থেকে সড়ক পথে শিলিগুড়ি আসে। বিশ্রামের জন্য শিলিগুড়ির প্রধাননগরের তেনজিং নোরগে বাস টার্মিনাস সংলগ্ন একটি হোটেল ভাড়া করে। সেখান থেকে বুধবার বিকেলেই বাসে করে এই সোনা কলকাতায় পাচারের উদ্দেশ্যে নিয়ে যাওয়া হত। সেই সময় গোপন সূত্রে খবর পেয়ে অভিযান চালিয়ে এই চারজনকে পাকড়াও করে ডিআরআই।

 

 

ধৃতদের প্রত্যেকের পায়ের জুতো থেকে দুটি করে মোট আটটি সোনার বাট উদ্ধার হয়। প্রত্যেকটির ওজন এক কেজি করে। মোটা সোলের জুতোর নীচে আলাদা চেম্বার বানিয়ে এই বাটগুলি লুকিয়ে রাখা ছিল। এছাড়াও প্রত্যেকের কোমরের বেল্ট থেকে ১৫টি সোনার বিস্কুট উদ্ধার হয়। প্রত্যেকটি সোনার বিস্কুটের ওজন ১৬৬ গ্রাম। সোনার বিস্কুটগুলি প্যান্ট ও বেল্টের মাঝে আঠা দিয়ে লাগানো ছিল। এই সোনা কলকাতায় হাত বদলের কথা ছিল বলে জানতে পেরেছে ডিআরআই।

 

 

উদ্ধার হওয়া সোনা সুইজারল্যাণ্ডের বলে জানা গিয়েছে। প্রত্যেকটি সোনার বাটে ‘আরগস’ নামক প্রস্তুতকারক সংস্থার নাম ও সিরিয়াল নম্বর পাওয়া গিয়েছে। সেই সংস্থার নাম ধরেই সোনা পাচারের তদন্তের গোড়ায় পৌঁছাতে চাইছে ডিআরআই।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!