দেশের অর্ধেক ‘চিকিৎসকের’ কোনও ডিগ্রিই নেই ! বলছে WHO

ওয়েব ডেস্কঃ ওয়ার্ল্ড হেলফ অরগানাইজেশনের একটি সম্প্রতিক সমীক্ষা দেখলে চমকে উঠতে হয়। গত ৪ জুলাই ওই সমীক্ষা রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে। সেখানে বলা হচ্ছে দেশের অধিকাংশ অ্যালোপ্যাথি চিকিৎসকের কোনও ডাক্তারি ডিগ্রিই নেই। এদের মধ্যে আবার অনেকেই মাধ্যমিক স্তরের পরে পড়াশোনাই করেননি। না জেনে বা বাধ্য হয়ে এদের হাতেই রয়েছে আমাদের চিকিৎসার ভার!

কী বলছে হু-র সমীক্ষাঃ

২০০১ সালের জনগণনা অনু‌যায়ী দেশের জনসংখ্যা একশো কুড়ি কোটি। আর চিকিৎসক ও চিকিৎসা কর্মী মিলিয়ে এই বিপুল সংখ্যক মানুষকে চিকিৎসা পরিষেবা দিয়ে থাকেন ২০ লাখ জন। এদের মধ্যে ৩৯.৬ শতাংশ মাত্র ডিগ্রিধারী চিকিৎসক। ৩০.৫ শাতংশ নার্স ও ১.২ শতাংশ দাঁতের ডাক্তার।চিকিৎসকদের মধ্যে ৭৭.২ শতাংশ অ্যালোপ্যাথিক ও ২২.৮ শতংশ হোমিওপ্যাথিক, আয়ুর্বেদিক কিংবা ইউনানি পদ্ধতিতে চিকিৎসা করেন।

অ্যালোপ্যাথিক চিকিৎসকদের মধ্যে ৩১.৪ শতংশের পড়াশোনা মাত্র স্কুলস্তর প‌র্যন্ত। ৫৭.৩ শতাংশের কোনও মেডিক্যাল ডিগ্রিই নেই। নার্সদের মধ্যে ৬৭.১ শতাংশের পড়াশোনা স্কুল লেভেল প‌র্যন্ত।দেশে এমন ৭৩টি জেলা রয়েছে ‌যেখানে ডিগ্রিধারী কোনও নার্স-ই নেই।

৮৩.৪ শতাংশ শহুরে চিকিৎসকের পড়াশোনা সেকেন্ডারি স্তরের ওপরে। গ্রামীণ এলাকায় এই হার ৪৫.৯ শতাংশ।দেশে ৩০টি জেলায় চিকিৎকের সংখ্যা একেবারেই কম। এইসব জেলাগলির অধিকাংশ উত্তরপূর্ব ভারতের।দেশের ৩০টি জেলায় চিকিৎসকের সংখ্যা দেশের অন্যান্য অংশের তুলনায় বেশি। এদের বেশির ভাগই দিল্লির।(India.com)

who-1


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *